| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   দেশজুড়ে -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সিলিন্ডার গ্যাসের দাম আরও বাড়ানোর সুপারিশ

১২ কেজির বোতলজাত এলপিজি গ্যাসের দাম ৬৫ টাকা বৃদ্ধি করে এক হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা নির্ধারণের সুপারিশ করেছে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।সৌদি চুক্তি মূল্য (সিপি) অনুযায়ী সেপ্টেম্বর মাসের এলপিজির সরবরাহ ব্যয় ৯১ দশমিক ৪৮ টাকা প্রতিকেজি হিসেবে ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম এক হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা করার সুপারিশ করে কমিশন গঠিত কারিগরি কমিটি।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইস্কাটনে বিয়াম ফাউন্ডেশনের শহীদ এ কে এম শামসুল হক খান মেমোরিয়াল হলে এলপিজির দাম নির্ধারণে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত গণশুনানি চলে কমিশনের কারিগরি কমিটি এলপিজি অপারেটরদের অন্য দাবিগুলো নাকচ করলেও ডিস্ট্রিবিউটর (পরিবেশক) এবং রিটেইলার (খুচরা বিক্রেতা) কমিশন বাড়ানোর সুপারিশ করেছে। শুনানিতে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) তরফ থেকে বলা হয়েছে, আইনগত দিক বিবেচনা করলে এলপিজি অপারেটরদের এ আবেদন আমলে নেওয়ার যৌক্তিকতা নেই।বিইআরসির চেয়ারম্যান আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে শুনানিতে কমিশনের সদস্য, অপারেটর প্রতিনিধি, ভোক্তা অধিকার প্রতিনিধি ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিকে এবং সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

কমিশনের কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি এলপিজি বোতলজাত এবং মজুতে চার্জ অপরিবর্তিত রাখতে চাইলেও পরিবেশক এবং খুচরা বিক্রেতার কমিশন বৃদ্ধির পক্ষে মত দিয়েছে।

এলপিজির দাম নির্ধারণে চলতি বছর ১২ জানুয়ারি প্রথম দফা শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ওই শুনানির পর এপ্রিল মাসে প্রথমবার এলপিজির দাম নির্ধারণ করে কমিশন। 

অন্যদিকে এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার দাবি জানিয়েছেন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর জ্বালানি উপদেষ্টা এবং জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শামসুল আলম। শুনানী অনুষ্ঠিত হলেও বিইআরসি দাম নির্ধারণ করেনি। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিইআরসি আরও মতামত নেবে। পরবর্তীতে দামের বিষয়ে আদেশ দেওয়া হবে বলে জানায়।

শুনানিতে বলা হয়, প্রতিমাসে অটোগ্যাসের দাম নির্ধারণের ফলে ভোক্তাদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিচ্ছে। তারা বিষয়টিকে ভালোভাবে গ্রহণ করছেন না। ফলে সারাবছরের জন্য ভোক্তাদের একটি দামে অটোগ্যাস দেওয়ার সুপারিশ করা হয়। তবে সৌদি সিপি অনুযায়ী এলপিজির দর ওঠা নামা করার ভিত্তিতে একটি দাম প্রস্তাব করা হয়।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, সৌদি সিপিতে এলপিজির দাম টন প্রতি ৫০০ ডলার হলে প্রতি লিটার এলপিজির দাম হবে ৪৫ টাকা। সৌদি সিপিতে ৫০১ থেকে ৬০০ হলে লিটার প্রতি দাম হবে ৫০ টাকা, ৬০১ থেকে ৭০০ ডলার দাম হলে ৫৫ টাকা লিটার প্রতি এলপিজি বিক্রি করতে চায় তারা। ব্যবসায়ীরা বলছেন টেকসই উন্নয়নের জন্য অন্তত দুই বছর পর পর এই দাম পরিবর্তন করা যেতে পারে।

সিলিন্ডার গ্যাসের দাম আরও বাড়ানোর সুপারিশ
                                  

১২ কেজির বোতলজাত এলপিজি গ্যাসের দাম ৬৫ টাকা বৃদ্ধি করে এক হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা নির্ধারণের সুপারিশ করেছে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।সৌদি চুক্তি মূল্য (সিপি) অনুযায়ী সেপ্টেম্বর মাসের এলপিজির সরবরাহ ব্যয় ৯১ দশমিক ৪৮ টাকা প্রতিকেজি হিসেবে ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম এক হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা করার সুপারিশ করে কমিশন গঠিত কারিগরি কমিটি।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইস্কাটনে বিয়াম ফাউন্ডেশনের শহীদ এ কে এম শামসুল হক খান মেমোরিয়াল হলে এলপিজির দাম নির্ধারণে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত গণশুনানি চলে কমিশনের কারিগরি কমিটি এলপিজি অপারেটরদের অন্য দাবিগুলো নাকচ করলেও ডিস্ট্রিবিউটর (পরিবেশক) এবং রিটেইলার (খুচরা বিক্রেতা) কমিশন বাড়ানোর সুপারিশ করেছে। শুনানিতে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) তরফ থেকে বলা হয়েছে, আইনগত দিক বিবেচনা করলে এলপিজি অপারেটরদের এ আবেদন আমলে নেওয়ার যৌক্তিকতা নেই।বিইআরসির চেয়ারম্যান আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে শুনানিতে কমিশনের সদস্য, অপারেটর প্রতিনিধি, ভোক্তা অধিকার প্রতিনিধি ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিকে এবং সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

কমিশনের কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি এলপিজি বোতলজাত এবং মজুতে চার্জ অপরিবর্তিত রাখতে চাইলেও পরিবেশক এবং খুচরা বিক্রেতার কমিশন বৃদ্ধির পক্ষে মত দিয়েছে।

এলপিজির দাম নির্ধারণে চলতি বছর ১২ জানুয়ারি প্রথম দফা শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ওই শুনানির পর এপ্রিল মাসে প্রথমবার এলপিজির দাম নির্ধারণ করে কমিশন। 

অন্যদিকে এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার দাবি জানিয়েছেন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর জ্বালানি উপদেষ্টা এবং জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শামসুল আলম। শুনানী অনুষ্ঠিত হলেও বিইআরসি দাম নির্ধারণ করেনি। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিইআরসি আরও মতামত নেবে। পরবর্তীতে দামের বিষয়ে আদেশ দেওয়া হবে বলে জানায়।

শুনানিতে বলা হয়, প্রতিমাসে অটোগ্যাসের দাম নির্ধারণের ফলে ভোক্তাদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিচ্ছে। তারা বিষয়টিকে ভালোভাবে গ্রহণ করছেন না। ফলে সারাবছরের জন্য ভোক্তাদের একটি দামে অটোগ্যাস দেওয়ার সুপারিশ করা হয়। তবে সৌদি সিপি অনুযায়ী এলপিজির দর ওঠা নামা করার ভিত্তিতে একটি দাম প্রস্তাব করা হয়।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, সৌদি সিপিতে এলপিজির দাম টন প্রতি ৫০০ ডলার হলে প্রতি লিটার এলপিজির দাম হবে ৪৫ টাকা। সৌদি সিপিতে ৫০১ থেকে ৬০০ হলে লিটার প্রতি দাম হবে ৫০ টাকা, ৬০১ থেকে ৭০০ ডলার দাম হলে ৫৫ টাকা লিটার প্রতি এলপিজি বিক্রি করতে চায় তারা। ব্যবসায়ীরা বলছেন টেকসই উন্নয়নের জন্য অন্তত দুই বছর পর পর এই দাম পরিবর্তন করা যেতে পারে।

কাদের মির্জার পাঠানো গরু-ছাগল ফেরত দিল কোম্পানীগঞ্জ থানা
                                  

ঈদুল আজহা উপলক্ষে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার পক্ষ থেকে দেওয়া ঈদ উপহার কোরবানির গরু-ছাগল ফিরিয়ে দিয়েছে কোম্পানীগঞ্জ থানা।

মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকালে কোম্পানীগঞ্জ থানা থেকে উপহারের ওই গরু-ছাগল ফেরত দেওয়া হয়। এর আগে, সোমবার (১৯ জুলাই) গরু-ছাগল থানায় পাঠানো হয়েছিল। 
 
উপহার ফেরত পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার।

তিনি জানান, ঈদুল আজহা উদযাপন করতে কোম্পানীগঞ্জ থানায় মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার পক্ষ থেকে ১টি গরু ও ২টি ছাগল পাঠানো হয়। উপহারের গরু-ছাগল নিতে অপারগতা দেখালে তিনি লোক পাঠিয়ে ঈদ উপহারের গরু-ছাগল ফেরত নেন।  
এ বিষয়ে বেশি কথা বলতে অনীহা দেখান ওসি। জানা যায়, পুলিশ সদস্যদের জন্য কোরবানির পশুর ব্যবস্থা করেছেন জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন।
এ বিষয়ে আবদুল কাদের মির্জার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
কাদের মির্জার পাঠানো গরু-ছাগল ফেরত দিল কোম্পানীগঞ্জ থানা
                                  

ঈদুল আজহা উপলক্ষে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার পক্ষ থেকে দেওয়া ঈদ উপহার কোরবানির গরু-ছাগল ফিরিয়ে দিয়েছে কোম্পানীগঞ্জ থানা।

মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকালে কোম্পানীগঞ্জ থানা থেকে উপহারের ওই গরু-ছাগল ফেরত দেওয়া হয়। এর আগে, সোমবার (১৯ জুলাই) গরু-ছাগল থানায় পাঠানো হয়েছিল। 
 
উপহার ফেরত পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার।

তিনি জানান, ঈদুল আজহা উদযাপন করতে কোম্পানীগঞ্জ থানায় মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার পক্ষ থেকে ১টি গরু ও ২টি ছাগল পাঠানো হয়। উপহারের গরু-ছাগল নিতে অপারগতা দেখালে তিনি লোক পাঠিয়ে ঈদ উপহারের গরু-ছাগল ফেরত নেন।  
এ বিষয়ে বেশি কথা বলতে অনীহা দেখান ওসি। জানা যায়, পুলিশ সদস্যদের জন্য কোরবানির পশুর ব্যবস্থা করেছেন জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন।
এ বিষয়ে আবদুল কাদের মির্জার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
ভদ্রবাবু’র দাম উঠল ১৫ লাখ
                                  

রংপুরে এক হাজার ৪০০ কেজি ওজনের ‘ভদ্রবাবু’ নামে গরুটির দাম হাঁকা হয়েছে ২০ লাখ টাকা। এরইমধ্যে ১৫ লাখ টাকা দাম উঠেছে গরুটির। আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে বিশালাকার গরুটি বিক্রির ইচ্ছা প্রকাশের পর খামারি রওশনের বাড়িতে ভিড় করছেন উৎসুক জনতা।

প্রায় সাত বছর আগে একটি দেশি গরু দিয়ে খামার শুরু করেছিলেন রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার কিসামত হাবু গ্রামের রওশানুল ইসলাম। তারই চতুর্থ প্রজন্মে এসে এর নতুন জাতের নামকরণ করা হয়েছে হলেস্টেইন ফ্রিজিয়ান।

 

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে চুক্তিভিত্তিক কৃত্রিম প্রজননকারী হিসাবে কর্মরত রওশানুল ইসলামের খামারে ৫ বছর বয়সী ভদ্রবাবুর প্রধান বৈশিষ্ট্য তার শান্তশিষ্ট স্বভাব। যে কারণে কখনো তাকে বেধে রাখেননি বলে জানান রওশান।

 

ঈদ উপলক্ষে এবার তিনটি গরু প্রস্তুত করেছেন তিনি। বাকি দুটির মধ্যে একটির দাম তিন লাখ আরেকটির দাম দুই লাখ।

 

এরই মধ্যে একজন ক্রেতা ১৫ লাখ টাকায় গরুটি কেনার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন রওশান।করোনা মহামারির কারণে গরুগুলো তিনি হাটে তুলবেন না, বাড়ি থেকেই তুলে দিতে চান ক্রেতার হাতে। পাশাপাশি ঈদের আগের দিন পর্যন্ত নিজের তত্ত্বাবধানে রাখতেও আপত্তি নাই তার।
রোহিঙ্গা সংকট: সমাধানের আহ্বানে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে
                                  

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের আহ্বানে জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদে একটি প্রস্তাব পাশ করা হয়েছে। এই প্রস্তাবের মাধ্যমে অবর্ণনীয় নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর পক্ষে জবাবদিহিতা ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

একই সঙ্গে  বাংলাদেশে আশ্রিত জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে দ্রুত পুনর্বাসনের মাধ্যমে চলমান রোহিঙ্গা সংকট সমাধান করা যাবে।

 

সোমবার (১২ জুলাই) সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের ৪৭তম অধিবেশনে রোহিঙ্গা সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।

 

জেনেভায় অবস্থিত বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, মানবাধিকার পরিষদের চলমান অধিবেশনে বাংলাদেশের উদ্যোগে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) সকল সদস্য রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ‘রোহিঙ্গা মুসলিম ও মিয়ানমারের অন্যান্য সংখ্যালঘুদের মানবাধিকার পরিস্থিতি’ শীর্ষক প্রস্তাবটি পেশ করা হয়।
মিয়ানমারের পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে শুরু থেকেই প্রস্তাবের বিভিন্ন বিষয়ে জাতিসংঘের সদস্য দেশগুলোর মধ্যে প্রবল মতভেদ পরিলক্ষিত হয়। অবশেষে, নিবিড় ও সুদীর্ঘ আপোস-আলোচনা শেষে প্রস্তাবটি সোমবার জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।

 

প্রস্তাবটির ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে জেনেভায় জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘মানবিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্মম নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের সীমানা উন্মুক্ত করে দেন। তবে অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এই যে, গত চার বছরেও মিয়ানমারের অসহযোগিতা ও অনীহার কারণে অদ্যাবধি জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরু করা সম্ভব হয়নি।’

 

তিনি আরও বলেন, জাতিসংঘের আলোচ্য সূচিতে রোহিঙ্গা সংকট সমাধান ও রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার সুরক্ষার বিষয়টি সক্রিয় আলোচনা রাখা প্রয়োজন। কেবল মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে বিশ্ব সম্প্রদায়ের রোহিঙ্গাদের প্রতি মনোযোগ হারানো উচিত হবে না বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

তিনি জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে পূর্ণ নিরাপত্তা ও সম্মান সঙ্গে নিজেদের অবাসস্থলে ফেরত পাঠানোর জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে দৃশ্যমান ও কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।

 

প্রস্তাবটিতে বিতাড়িত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় প্রদান করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়। এছাড়া তাদের মিয়ানমারে ফেরত যাওয়া পর্যন্ত এ গুরুভার বহনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে মানবিক সহায়তা প্রদান অব্যাহত রাখার আহ্বান জানানো হয়।

 

গৃহীত এ প্রস্তাবে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে যৌন অপরাধসহ সকল প্রকার নির্যাতন, মানবতা বিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত ও দায়ী ব্যক্তিদের জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিচার ব্যবস্থার আওতায় আনা ও তদন্ত প্রক্রিয়া জোরদার করার প্রতি গুরুত্বারোপ করা হয়।

 

এ পরিপ্রেক্ষিতে, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত এবং আন্তর্জাতিক আদালতে চলমান বিচার প্রক্রিয়াকেও সমর্থন জানানো হয়। এছাড়া প্রস্তাবটিতে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চলমান সকল প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানিয়ে এরূপ পরিস্থিতিতে করণীয় নির্ধারণে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের এখতিয়ারের কথা পুনর্ব্যক্ত করা হয়।

 

প্রস্তাবে জাতিসংঘ মানবাধিকার হাইকমিশনারকে মিয়ানমার বিষয়ক ‘নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক তথ্যানুসন্ধানী মিশন’ এর সুপারিশসমূহ বাস্তবায়নের অগ্রগতির উপর মানবাধিকার পরিষদ এবং জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে প্রতিবেদন উপস্থাপনের অনুরোধ জানানো হয়। এছাড়া, এ প্রস্তাব গ্রহণের মধ্য দিয়ে ‘রোহিঙ্গা মুসলিম ও অন্যান্য সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের মূল কারণ’ বিষয়ে মানবাধিকার পরিষদে একটি প্যানেল আলোচনা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত হয়।

 

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে প্রবেশের পর জেনেভায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় এই প্রথম কোন প্রস্তাব বিনা ভোটে জাতিসংঘে গৃহীত হলো। সেই বিবেচনায় এবারের প্রস্তাবটি বাংলাদেশের জন্য একটি বড় মাইলফলক। 
১৪ দিনের পূর্ণ ‘শাটডাউনের’ সুপারিশ
                                  

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম নিজস্ব প্রতিনিধি কোভিড-১৯  সংক্রমণ প্রতিরোধে সারাদেশে কমপক্ষে ১৪ দিনের পূর্ণ শাটডাউন দেওয়ার সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

বৃহস্পতিবার কোভিড কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মােহাম্মদ সহিদুল্লাহ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশে কোভিড-১৯ রােগের বিশেষ ডেল্টা ধরনের সামাজিক সংক্রমণ চিহ্নিত হয়েছে। ইতােমধ্যে এর প্রকোপ অনেক বেড়েছে। এ প্রজাতির জীবাণুর সংক্রমণ ক্ষমতা তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য বিশ্লেষণে সারাদেশেই উচ্চ সংক্রমণ, পঞ্চাশাের্ধ্ব জেলায় অতি উচ্চ সংক্রমণ লক্ষ্য করা গেছে। এটি প্রতিরােধে খণ্ড খণ্ডভাবে নেওয়া কর্মসূচির উপযােগিতা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। অন্যান্য দেশ, বিশেষত পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের অভিজ্ঞতা হলো, কঠোর ব্যবস্থা ছাড়া এর বিস্তৃতি প্রতিরােধ করা সম্ভব নয়। ভারতের শীর্ষস্থানীয় বিশেষজ্ঞদের সঙ্গেও এ বিষয়ে আলােচনা হয়েছে। তাদের মতামত অনুযায়ী, যে সব স্থানে পূর্ণ ‘শাটডাউন’ প্রয়ােগ করা হয়েছে সেখানে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ হয়েছে।

 

বর্তমান পরিস্থিতিতে রােগের বিস্তার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়া এবং জনগণের জীবনের ক্ষতি প্রতিরােধের জন্য কমিটি সর্বসম্মতিক্রমে সারাদেশে কমপক্ষে ১৪ দিন সম্পূর্ণ `শাটডাউন` দেওয়ার সুপারিশ করছে।

জরুরি সেবা ছাড়া যানবাহন, অফিস-আদালতসহ সবকিছু বন্ধ রাখা প্রয়ােজন। এ ব্যবস্থা কঠোরভাবে পালন করতে না পারলে আমাদের যত প্রস্তুতিই থাকুক না কেন স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অপ্রতুল হয়ে পড়বে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন সংগ্রহের জন্য সর্বাত্মক উদ্যোগ নিয়েছেন। এজন্য সভায় তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়। এ রােগ থেকে পূর্ণ মুক্তির জন্য ৮০ শতাংশের ঊর্ধ্বে মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া প্রয়ােজন। বিদেশ থেকে টিকা সংগ্রহ, লাইসেন্সের মাধ্যমে দেশে টিকা উৎপাদন করা এবং নিজস্ব টিকা তৈরির জন্য সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে গবেষণার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টার প্রতি কমিটি পূর্ণ সমর্থন জানায়।

দেশে আজও ভারি বৃষ্টির আশঙ্কা
                                  

গতকাল বৃহস্পতিবার (০৩ জুন) সারাদেশে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ অনেকটা কম ছিল। তবে এই আবহাওয়া পরিবর্তিত হয়ে আজ শুক্রবার (০৪ জুন) দেশের বিভিন্ন জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।শুক্রবার (০৪ জুন) সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়; ঢাকা, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি বৃষ্টি হতে পারে।তাপমাত্রার পূর্বাভাসে বলা হয় সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। সেই সঙ্গে পরবর্তী তিন দিনের আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এ সময় ঢাকায় দক্ষিণ বা দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ০৫-১০ কিলোমিটারে ওঠে যেতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়।

আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থায় বলা হয়, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে, যার একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

এ ছাড়া গতকাল বুধবার (০২ জুন) সারাদেশে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে দিনাজপুর ও চট্টগ্রামের কুতুবদিয়ায় ৩৬ দশমিক ৮  ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যশোরে ২৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে সিলেটে ৩৬ মিলিমিটার।

ঝড়ো হওয়া ও বজ্রবৃষ্টি হতে পারে
                                  

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং কুষ্টিয়া অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্র্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। 

শনিবার (২২ মে) সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আরও বলা হয়েছে, রাঙ্গামাটি, সীতাকুণ্ড, কুমিল্লা, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী, শ্রীমঙ্গল, রাজশাহী ও পাবনা অঞ্চলসহ ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

সারা দেশের দিন ও রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আবহাওয়া অফিস আরও জানায়, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়েছে। এটি ঘনীভূত হয়ে নিম্নচাপ এবং পরবর্তীতে গভীর নিম্নচাপ ও ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে।

লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে এক নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

৪৮ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থায় বলা হয়েছে, এ সময়ের শেষের দিকে বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে এবং তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পেতে পারে। রোববার ঢাকায় সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৬টা ৩৭ মিনিটে ও সূর্যোদয় হবে ভোর পাঁচটা ১৩ মিনিটে।

ভালুকায় বনকর্মকর্তার মিথ্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যানকে হয়রানীর প্রতিবাদে মানববন্ধন।
                                  

এস ডি সোহাগ ভালুকা প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ভালুকায় বনবিভাগের অসাধু কর্মকর্তাদের ঘুষ না দেয়ায় মিথ্যা মামলা ও হয়রানী বন্ধের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। বৃহস্পতিবার (২০ মে) দুপুরে ভালুকা উপজেলা পরিষদ চত্বরে,ভালুকা সদর ইউনিয়নের শত-শত এলাকাবাসী, বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে অসাধু বনকর্মকতাদের ঘুষ বানিজ্য বন্ধসহ ভালুকা সদর ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান শিহাব আমীনের বিরুদ্ধে দায়ের করা গাছ চুরির মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান। মানববন্ধনে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন,অসাধু বনকর্মকর্তারা স্থানীয় বাসিন্দারা নিজেদের প্রয়োজনে ঘরবাড়ি করতে গেলে মোটা অংকের ঘুষ দাবী করে চাহিদা মতো ঘুষের টাকা না পেলে তাদের মিথ্যা মামলাসহ বসতবাড়ীতে হামলা চালিয়ে হয়রানি করে আসছে। তাই ঘুষখোর বন কর্মকর্তাদের ঘুষ বানিজ্য বন্ধসহ ভালুকা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ হয়রানী বন্ধের দাবী জানান। এ ব্যাপারে হবিরবাড়ীর রেঞ্জ কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক এর সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

একসাথে ৫৬০ টি মসজিদ করেছে বাংলাদেশ।
                                  
 ফিরোজ মাহমুদ।ইসলাম ধর্ম সৃষ্টির পর হইতে ৫৬০ টি মডেল মসজিদ এক সাথে তৈরি করার জন্য এই প্রথম উদ্যোগ নিয়েছে বতমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা।জানাগেছে পৃথিবীতে আর কোন রাষ্ট্রপ্রধান একসাথে এত মসজিদ তৈরি করেছেন এমন নজির পৃথিবীতে নেই।

(সংক্ষেপে আলোচনা)এসব মডেল মসজিদ হবে গবেষণা, ইসলামি সংস্কৃতি ও জ্ঞান চর্চা কেন্দ্র,আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত সুবিশাল এসব মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্সে নারী ও পুরুষদের পৃথক ওজু ও নামাজ আদায়ের সুবিধা, লাইব্রেরী, গবেষণা কেন্দ্র, ইসলামিক বই বিক্রয় কেন্দ্র, পবিত্র কুরআন হেফজ বিভাগ, শিশু শিক্ষা, অতিথিশালা, বিদেশি পর্যটকদের আবাসন,
মৃতদেহ গোসলের ব্যবস্থা, হজ্জযাত্রীদের নিবন্ধন ও প্রশিক্ষণ, ইমামদের প্রশিক্ষণ, অটিজম কেন্দ্র, গণশিক্ষা কেন্দ্র, ইসলামী সংস্কৃতি কেন্দ্র থাকবে।এছাড়া ইমাম-মুয়াজ্জিনের আবাসনসহ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য অফিসের ব্যবস্থা এবং গাড়ি পার্কিং সুবিধা রাখা হয়েছে।মডেল মসজিদগুলোতে দ্বীনি দাওয়া কার্যক্রম ও ইসলামী সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি মাদক, সন্ত্রাস, যৌতুক, নারীর প্রতি সহিংসতাসহ বিভিন্ন সামাজিক ব্যাধি রোধে সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।
মডেল মসজিদগুলো শুধু নামাজ পড়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে না। এখানে ইসলামী সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি জ্ঞান অর্জন ও গবেষণা সুযোগ থাকবে, প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকবে,৫৬০টি মডেল মসজিদে সারাদেশে প্রতিদিন ৪ লাখ ৯৪ হাজার ২০০ জন পুরুষ ও ৩১ হাজার ৪০০ জন নারী একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।
লাইব্রেরী সুবিধার আওতায় প্রতিদিন ৩৪ হাজার পাঠক এক সঙ্গে কোরআন ও ইসলামিক বই পড়তে পারবেন,
ইসলামিক বিষয়ে গবেষণার সুযোগ থাকবে ৬ হাজার ৮০০ জনের। ৫৬ হাজার মুসল্লি সব সময় দোয়া, মোনাজাতসহ তসবিহ পড়তে পারবেন।
মসজিদগুলো থেকে প্রতি বছর ১৪ হাজার হাফেজ তৈরির ব্যবস্থা থাকবে। আরও থাকবে ইসলামিক নানা বিষয়সহ প্রতিবছর ১ লাখ ৬৮ হাজার শিশুর প্রাথমিক শিক্ষার ব্যবস্থা,
২ হাজার ২৪০ জন দেশি-বিদেশি অতিথির আবাসন ব্যবস্থাও গড়ে তোলা হবে প্রকল্পের আওতায়,
কেন্দ্রগুলোতে পবিত্র হজ পালনের জন্য ডিজিটাল নিবন্ধনের ব্যবস্থা থাকবে ইনশাআল্লাহ।

ঈদের দিন সব বাস টার্মিনালে অবস্থান ধর্মঘট
                                  

ঈদুল ফিতরের দিন শুক্রবার (১৪ মে) সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সব বাস টার্মিনালে অবস্থান ধর্মঘট পালন করবেন পরিবহন শ্রমিকরা। আন্তঃজেলা বাস চলাচলের অনুমতি দেওয়ার দাবিতে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা। বাংলাদেশ পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব ও ঢাকা জেলা পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৩ মে) তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, বাংলাদেশের ৫০ বছরের ইতিহাসে ঈদের সময় আন্তঃজেলা বাস চলাচলে নিষেধাজ্ঞা- এমন দুর্বিষহ দিন কখনোই আসেনি। উল্টো যেসব গাড়ি সারা বছর বা বছরের বেশিরভাগ সময় চালানো যায়নি, বা মালিকরা চালাননি, সেসব গাড়িও  ঈদের সময় চালানো হয়েছে। মানুষকে পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ করার সুযোগ করে দিতে বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছে।

তিনি বলেন, এ বছর করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে এটি করা হলেও কোনও লাভ হয়নি। কারণ, মানুষকে ঘরে আটকে রাখা যায়নি। মানুষ বিভিন্ন উপায়ে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে বাড়িতে গেছে, ঠেকানো যায়নি। যা সারা দেশবাসীর সঙ্গে সরকারের নীতিনির্ধারকরাও অসহায়ের মতো শুধুই দেখেছে।

বাংলাদেশ পরিবহন মালিক সমিতির এই নেতা বলেন, আমি সরকারকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম- করোনা সংক্রমণ যাতে না বাড়ে, সে বিষয়টিকে অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে গাড়ি এক জেলা থেকে অন্য জেলায় যাবে। রাজধানী ঢাকা থেকেও একইভাবে গাড়িগুলো পরিচালনা করা হবে। সামাজিক দূরত্ব মানার বিষয়টিও নিশ্চিত করা হবে। কিন্তু সরকার আমাদের কথা শুনলো না। আমাদের আন্তঃজেলা গাড়িগুলো চালানোর অনুমতি দিলেন না। তাতে কী হলো? মানুষকে ঘরে আটকে রাখা গেলো না। যেভাবে মানুষজন একজনের কাঁধে চড়ে আরেকজন গেছেন, তাতে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের কোনও সুযোগই ছিল না। এতে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কাও করছেন সরকার সংশ্লিষ্টরা। অপরদিকে আমরা যারা এই সেক্টরের সঙ্গে জড়িত, তাদের জন্য এই ঈদকে দুর্বিষহ করে তোলা হলো।

তিনি আরও বলেন, সত্যি কথা বলতে লজ্জা নেই। আজ আমাদের অনেকের ঘরেই ভাত খাওয়ার চাল নেই, ঈদের নতুন কাপড় দূরে থাক, এটিই বাস্তবতা।

পরিবহন মালিক নেতা খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করে টিকে থাকার জন্য সরকারের কাছে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চেয়েছিলাম। সরকার দেয়নি। শ্রমিকদের জন্য ওএমএস’র চাল চেয়েছিলাম, তাও দেয়নি। সর্বশেষ বাস টার্মিনালে শ্রমিকদের কাছে বিক্রির জন্য ১০ টাকা কেজি দরের চালও চেয়েছিলাম। তাও দেয়নি।

তিনি জানান, আমাদের পিঠও দেয়ালে ঠেকে গেছে। তাই আবারও আন্তজেলা বাস চালানোর সুযোগ দেওয়ার দাবিতে ঈদের দিন শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত দেশের সব বাস টার্মিনালে মালিক-শ্রমিকরা মিলেমিশে অবস্থান ধর্মঘট পালন করবো।

উথুরা বাসীকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল ইসলাম
                                  

 

 

এস ডি সোহাগ ভালুকা প্রতিনিধি।:পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশ-বিদেশে অবস্থানরত ১নং উথুরা ইউনিয়নের সর্বস্থরের সম্মানিত নাগরিকবৃন্দ’সহ প্রিয় ভালুকাবাসী এবং মুসলিম বিশ্বের সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন- আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর মনোনয়ন প্রত্যাশী, সাবেক মেধাবী ছাত্রনেতা, তরুণ উদীয়মান রাজনীতিবিদ ৬নং চামিয়াদী ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা, সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল ইসলাম।

 

আজ গণমাধ্যমে প্রেরিত এক শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি বলেন— একমাস সিয়াম সাধনার পর খুশি আর আনন্দের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে এসেছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঈদ সব শ্রেণীর মানুষের মাঝে গড়ে তোলে সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য ও ঐক্যের বন্ধন। সাম্য মৈত্রী ও ভ্রাতৃত্বের মহিমান্বিত আহ্বানে শান্তি-সুধায় ভরে উঠুক প্রতিটি মানুষের হৃদয় -এমনটাই আমার প্রানের চাওয়া।

 

তিনি আরও বলেন— এবার ঈদুল ফিতর এমন একটি সময়ে আমরা পালন করতে চলেছি, যখন বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সমগ্র বিশ্বের মানবসমাজ। আমাদের পরিবার-পরিজন বন্ধু-বান্ধব, দলীয় নেতাকর্মী ও পরিচিতজন অনেকেই আক্রান্ত। ইতোপূর্বে এই ভাইরাসে আমরা অনেকেই আপনজনকে হারিয়েছি।

 

তাছাড়া দীর্ঘদিন ঘরবন্দি থেকে মানুষের জীবন হয়ে উঠেছে দুর্বিসহ। এমনই সময় ঈদ এসেছে আনন্দের বার্তা নিয়ে। তাই সকল প্রকার স্বাস্থ্যবিধি এবং সরকারি নীতিমালা মেনে সচেতনতার সঙ্গে ঘরে থেকেই ঈদ উদযাপন করতে তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

কন্যাসন্তান জন্ম দেওয়ায় পুত্রবধূকে আনতে হেলিকপ্টার পাঠালেন শ্বশুর
                                  

কন্যাসন্তান জন্ম দেওয়ায় পুত্রবধূকে বাড়িতে আনতে হেলিকপ্টার পাঠিয়েছিলেন এক শ্বশুর। গত ২১ এপ্রিল ভারতের রাজস্থান রাজ্যের নাগর জেলায় এমন ঘটনা ঘটেছে। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।জানা গেছে, জেলার হনুমান প্রজাপতের স্ত্রী চুকি দেবী গত ৩ মার্চ হাসপাতালে কন্যাসন্তান প্রসব করেন। শিশুটির নাম রাখা হয় রিয়া। জন্মের পর হাসপাতাল থেকে তাকে প্রথমে নেওয়া হয় রাজস্থানের হারসোলাভ গ্রামে তার নানাবাড়িতে। 

সেখানে এক মাস থাকার পর গত ২১ এপ্রিল রিয়াকে নেওয়া হয় নাগর জেলার নিম্বড়ি চান্দয়াতা গ্রামে তার দাদাবাড়িতে। তবে রিয়ার দাদা মদনলাল কুমার যেনতেনভাবে নাতনিকে স্বাগত জানাতে রাজি ছিলেন না। কারণ, ৩৫ বছরের মধ্যে এই প্রথম তার পরিবারে কোনো কন্যাশিশুর জন্ম হয়েছে। আর তাই পুত্রবধূ ও নাতনিকে বাড়িতে আনতে হেলিকপ্টার পাঠিয়েছিলেন তিনি।

এ বিষয়ে রিয়ার বাবা হনুমান প্রজাপত সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে বলেন, আমরা আমাদের বাড়িতে রাজকন্যার আগমনকে স্মরণীয় করে রাখতে চেয়েছিলাম। এ জন্য আমি ও আমার পরিবার সর্বোচ্চ হেলিকপ্টারের ব্যবস্থাই করতে পারতাম এবং আমরা সেটাই করেছি।’

রিয়ার দাদা মদনলাল বলেন, ৩৫ বছর পর আমাদের পরিবারে একটি কন্যাশিশুর জন্ম হয়েছে। এই খুশিতেই আমরা এমন ব্যবস্থা করেছি। আমি আমার নাতনির সব স্বপ্ন পূরণ করব।

দুই স্ত্রী রেখে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক, ভিডিও ছড়িয়ে পড়ায় আত্মহত্যা
                                  

দুই স্ত্রী রেখে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে প্রেম। পরে শারীরিক সর্ম্পক। আর ভিডিও ধারণ করে তা ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে বার বার ধর্ষণ। সবশেষ ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিষপানে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা। এ ঘটনায় অভিযুক্ত হাফিজুরকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি বলছে, ধর্ষণে জড়িত থাকতে পারে হাফিজুরের বন্ধুরাও।ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ায় রংপুরে আত্মহত্যা করা স্কুলছাত্রীর পরিবার ভয়ে এলাকা ছাড়া। মূল অভিযুক্ত ইউপি সদস্যের ছেলেকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। রংপুরের বদরগঞ্জ থানার কাঁচাবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তোলেন লোহানীপাড়া ইউনিয়ের সাবেক মেম্বার ইউনুস আলীর ছেলে হাফিজুর রহমান।

আগের দুইজন স্ত্রী থাকলেও এই শিক্ষার্থীর সাথে বেশ কয়েকবার শারীরিক সর্ম্পকে মিলিত হন হাফিজুর রহমান। শারীরিক সর্ম্পকের এই ভিডিও মুঠোফোনে ধারণ করেন হাফিজুরের বন্ধু বিপুল চন্দ্র।

ধর্ষক হাফিজুর রহমান বলেন, সে (স্কুলছাত্রী) আমাকে খুব পছন্দ করতো। সে আমাকে বলতো তুমি যা চাও তাই হবে। আমার কোনো সমস্যা নেই। প্রথম স্ত্রীর সমস্যা থাকায় সে অন্যখানে বিয়ে করেছে। পরে দ্বিতীয় বিয়ে করি, সে আমার এ সম্পর্কের কথা জানে। 

পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে বন্ধু বিপুলের বাড়িতে নিয়ে কয়েকবার ধর্ষণ করেন হাফিজুর। হাফিজুরের বন্ধুরা মিলে ভাইরাল করে ভিডিওটি।

এই ঘটনা জানাজানি হলে চলতি বছরের জানুয়ারিতে বিষপানে আত্নহত্যা করে ওই শিক্ষার্থী।

সিআইডির ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম বলেন, এই মেয়েটির সাথে সে প্রেম করে, প্রেমের এক পর্যায়ে সে তাকে ধর্ষণ করে। এবং তার এক সহযোগী বিপুল চন্দ্র গোপনে ভিডিও ধারণ করে। এরপর সে প্রায়ই ভিডিওর ভয় দেখিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। মেয়েটির বয়স কম এবং গরীব পরিবারের হওয়ায় লোক লজ্জার ভয়ে বিষপান করে গত ৫ জানুয়ারি। 

পুলিশ জানায়, ঘটনার পর থেকে ভিকটিমের পরিবার লোকলজ্জার ভয়ে এলাকা ছেড়েছেন। ভিডিও ধারণকারী হাফিজুরের বন্ধুদের ধর্ষণে সম্পৃক্ততা থাকতে পারে বলে ধারণা করছে সিআইডি।

সিআইডি এই ঘটনায় জড়িত হাফিজুর রহমানকে মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) রাজধানীর আশুলিয়া থেকে গ্রেপ্তার করেছে।

ফেসবুকে ভাইরাল কোটি টাকার ‘পরী পালং খাট
                                  

খাটের চার কোণে চার পায়ায় চারটি বড় পরী। আর পরীর হাতে বসে আছে প্রজাপ্রতি। দুই পাশে চারটি করে মোট আটটি ছোট্ট আকারের পরী। খাট জুড়ে বিভিন্ন নকশায় ও পরীর এমন স্থির নকশায় কেবলই শিল্প ফুটে উঠেছে। যে কারণে খাটটির নাম দেয়া হয়েছে ‘পরী পালং খাট’।খাগড়াছড়ির গুইমারার স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক মো. নুরুন্নবী বানিয়েছেন ওই খাটটি। নিখুঁত দক্ষতায় তিন বছর দুই মাস সময়ে খাটটি নির্মাণ করেছেন আবু বক্কর ছিদ্দিক ওরফে কাঞ্চন মিস্ত্রি।

জানা গেছে, খাটটি তৈরির সময় কোনও নকশা বা ক্যাটালগ ছিল না ওই মিস্ত্রির কাছে। মিস্ত্রি তার মনের আবেগ আর মাধুর্য্য মিশিয়ে নকশা তৈরি করেছেন। এটি তৈরি করতে কাঞ্চন মিস্ত্রি মজুরি হিসেবে সাড়ে নয় লাখ টাকা নিয়েছেন এবং খাটটি তৈরি করতে নুরুন্নবীর মোট ব্যয় হয়েছে প্রায় ৪০ লাখ টাকা।

সম্প্রতি নিখুঁত দক্ষতায় তৈরি এই ‘পরী পালং খাট’ এর ছবি সামাজিক যোগোযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। আশপাশের এলাকায় খাটটির কথা ছড়িয়ে পড়লে সকল বয়সের মানুষ প্রতিদিনই এটি দেখার জন্য ভিড় করছেন কাঠ ব্যবসায়ী নুরন্নবীর বাড়ি।

জানা গেছে, কাঞ্চন মিস্ত্রি মাত্র চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। মাত্র ১৪ বছর বয়সে সে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় একটি ফার্নিচার দোকানে কাজ শুরু করেন। চার বছর পর তিনি নিজেই মিস্ত্রি হয়ে যান এবং কাজ করতে থাকেন। 

পরী পালং খাটের বিষয়ে তিনি বলেন, খাটটি তৈরি করতে একশ ফুট কাঠ লেগেছে। মনের মাধুর্য মিশিয়ে খাটটি তৈরি করেছেন বলেও জানান তিনি।

কাঠ ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতা নুরন্নবী জানিয়েছেন, ব্যতিক্রম কিছু করার পরিকল্পনা থেকেই খাটটি তৈরি করিয়েছি। কাজ শুরুর পর তিন বছর সময় নিয়েছেন কাঞ্চন মিস্ত্রি। সময় বেশি লাগলেও দুর্দান্ত কাজ করেছেন সে এবং এতে একটি স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রকৃত সেগুন কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে খাটটি। এর দাম এক কোটি টাকা হাঁকিয়েছি আমি। তবে এরই মধ্যে একজন ৭০ লাখ টাকা দাম বলেছেন। এটি বিক্রির পর লাভের একটি অংশ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান কাঠ ব্যবসায়ী নুরন্নবী।

মহামারি করোনার কারণে গত বছর বিমানের যাত্রী পরিবহন ৬৬ শতাংশ কমেছে।
                                  

আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সংস্থা আইএটিএ জানায়- সীমান্ত বন্ধ, ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা ও কড়াকড়ি আর ভ্রমণে আস্থা হারিয়ে ফেলায় ২০২০ সালে নাটকীয়ভাবে কমে গেছে যাত্রীদের বিমানে ভ্রমণ; যা ইতিহাসে সর্বোচ্চ।

এর মধ্যে ২০১৯ সালের চেয়ে সাড়ে ১০ শতাংশ কমেছে এয়ার কার্গো চলাচল, যা ১৯৯০ সালের পর সবচেয়ে বড় ধস।

নতুন করে করোনা সংক্রমণের কারণে ভ্যাকসিন বের হলেও এখনো স্বাভাবিক হয়নি পুরো বিশ্ব বিমান চলাচল। ২০২১ সালও এয়ারলাইন্স ইন্ডাস্ট্রির জন্য কঠিন বছর হবে বলে মনে করছেন আইএটিএর মহাপরিচালক আলেক্সান্ডার ডি জুনায়েক।
 


   Page 1 of 41
     দেশজুড়ে
সিলিন্ডার গ্যাসের দাম আরও বাড়ানোর সুপারিশ
.............................................................................................
কাদের মির্জার পাঠানো গরু-ছাগল ফেরত দিল কোম্পানীগঞ্জ থানা
.............................................................................................
কাদের মির্জার পাঠানো গরু-ছাগল ফেরত দিল কোম্পানীগঞ্জ থানা
.............................................................................................
ভদ্রবাবু’র দাম উঠল ১৫ লাখ
.............................................................................................
রোহিঙ্গা সংকট: সমাধানের আহ্বানে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে
.............................................................................................
১৪ দিনের পূর্ণ ‘শাটডাউনের’ সুপারিশ
.............................................................................................
দেশে আজও ভারি বৃষ্টির আশঙ্কা
.............................................................................................
ঝড়ো হওয়া ও বজ্রবৃষ্টি হতে পারে
.............................................................................................
ভালুকায় বনকর্মকর্তার মিথ্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যানকে হয়রানীর প্রতিবাদে মানববন্ধন।
.............................................................................................
একসাথে ৫৬০ টি মসজিদ করেছে বাংলাদেশ।
.............................................................................................
ঈদের দিন সব বাস টার্মিনালে অবস্থান ধর্মঘট
.............................................................................................
উথুরা বাসীকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল ইসলাম
.............................................................................................
কন্যাসন্তান জন্ম দেওয়ায় পুত্রবধূকে আনতে হেলিকপ্টার পাঠালেন শ্বশুর
.............................................................................................
দুই স্ত্রী রেখে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক, ভিডিও ছড়িয়ে পড়ায় আত্মহত্যা
.............................................................................................
ফেসবুকে ভাইরাল কোটি টাকার ‘পরী পালং খাট
.............................................................................................
মহামারি করোনার কারণে গত বছর বিমানের যাত্রী পরিবহন ৬৬ শতাংশ কমেছে।
.............................................................................................
বগুড়ায় মদপানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৪
.............................................................................................
ভাড়াটিয়ার মেয়েকে ধর্ষণ করলো বাড়িওয়ালার ছেলে
.............................................................................................
১২ কেজি গাঁজাসহ স্বামী-স্ত্রী আটক
.............................................................................................
৩ সন্তানের জনকের সাথে পালিয়ে গেল প্রবাসীর স্ত্রী!
.............................................................................................
কক্সবাজারের ৮ থানার ওসিসহ ৩৪ কর্মকর্তাকে বদলি
.............................................................................................
রোহিঙ্গা শিবির থেকে অস্ত্রসহ যুবক আটক
.............................................................................................
দেলদুয়ারে স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণ
.............................................................................................
ঈশ্বরদীতে আ.লীগের নির্বাচনী অফিসে হামলা, গুলি
.............................................................................................
দুই বন্ধু মিলে তিন দিন ধরে কিশোরীকে ধর্ষণ
.............................................................................................
নরসিংদীতে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ৬
.............................................................................................
৪ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে যুবলীগ নেত্রীর মামলা
.............................................................................................
শ্যামপুরে শিশুকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ
.............................................................................................
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, ধর্ষকসহ গ্রেপ্তার ৪
.............................................................................................
চাঁদাবাজির অভিযোগে এসআই প্রত্যাহার
.............................................................................................
সিনেমা হলে অনৈতিক কাজ, ৫ জনের সাজা
.............................................................................................
জামাইর ছুরিকাঘাতে শ্বশুর খুন
.............................................................................................
সাপের কামড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু
.............................................................................................
গাইবান্ধায় করোনায় নতুন আক্রান্ত ১২ জন
.............................................................................................
বন্দীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিলেন কারারক্ষী
.............................................................................................
আশুলিয়ায় গুলি চালিয়ে টাকা লুট
.............................................................................................
আয়নাল হত্যায় ২ জনের ফাঁসি
.............................................................................................
প্রেমে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রীকে হত্যা
.............................................................................................
ছেলের স্ত্রীকে যৌন নিপীড়ন, শ্বশুর আটক
.............................................................................................
গোপালগঞ্জে কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা
.............................................................................................
পরকীয়া প্রেমিকাকে বিয়ে করে কারাগারে জুয়েল
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জে একদিনে ৭ বাল্যবিবাহ বন্ধ করল ইউএনও
.............................................................................................
৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১
.............................................................................................
বাড়িতে পৌঁছানোর কথা বলে বন্ধুর স্ত্রীকে ধর্ষণ
.............................................................................................
ইউএনও ওয়াহিদার উপর হামলার নেপথ্যে মাদক ও চাঁদাবাজি
.............................................................................................
ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
.............................................................................................
বিয়ের দাবিতে শিক্ষকের বাড়িতে কলেজ ছাত্রী
.............................................................................................
৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যা, স্বামী আটক
.............................................................................................
গাজীপুরে স্টিল মিলের ৫ শ্রমিক দগ্ধ
.............................................................................................
সার আত্মসাত মামলায় শ্রমিকলীগ নেতা কারাগারে
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এম.এ মান্নান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ খন্দকার আজমল হোসেন বাবু। র্বাতা সম্পাদক আবু ইউসুফ আলী মন্ডল, ফোন ০১৬১৮৮৬৮৬৮২

ঠিকানাঃ বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়- নারায়ণগঞ্জ, সম্পাদকীয় কার্যালয়- জাকের ভিলা, হাজী মিয়াজ উদ্দিন স্কয়ার মামুদপুর, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ। শাখা অফিস : নিজস্ব ভবন, সুলপান্দী, পোঃ বালিয়াপাড়া, আড়াইহাজার, নারায়ণগঞ্জ-১৪৬০, রেজিস্ট্রেশন নং 134 / নিবন্ধন নং 69 মোবাইল : 01731190131, 01930226862, E-mail : mannannews0@gmail.com, web: notunbazar71.com, facebook- notunbazar / সম্পাদক dhaka club
    2015 @ All Right Reserved By notunbazar71.com

Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop