| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
মা বোনদের কাছে ক্ষমা চেয়ে যা বল্লেন মুরাদ

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করা ডা. মুরাদ হাসান এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) তিনি লিখেছেন, আমি যদি কোন ভুল করে থাকি অথবা আমার কথায় মা-বোনদের মনে কষ্ট দিয়ে থাকি তাহলে আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মমতাময়ী মা দেশরত্ন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সকল সিদ্ধান্ত মেনে নিবো আজীবন। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

এর আগে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান। বর্তমানে পত্রটি মন্ত্রণালয়ের সচিবের দফতরে রয়েছে। মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা  এ তথ্য জানিয়ে বলেন, এখনও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে জমা দেওয়া হয়নি। ই-মেইলে তিনি (ডা. মুরাদ হাসান) এ পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন।

 

 

 

https://web.facebook.com/muradhassanmp/?ref=nf&hc_ref=ARQLDxacjWsryUGyBgRqtiB3tpglPeZjF0dBL6udE8xbLpa6cyAYp7oYrKd3eX2czZo

মা বোনদের কাছে ক্ষমা চেয়ে যা বল্লেন মুরাদ
                                  

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করা ডা. মুরাদ হাসান এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) তিনি লিখেছেন, আমি যদি কোন ভুল করে থাকি অথবা আমার কথায় মা-বোনদের মনে কষ্ট দিয়ে থাকি তাহলে আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মমতাময়ী মা দেশরত্ন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সকল সিদ্ধান্ত মেনে নিবো আজীবন। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

এর আগে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান। বর্তমানে পত্রটি মন্ত্রণালয়ের সচিবের দফতরে রয়েছে। মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা  এ তথ্য জানিয়ে বলেন, এখনও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে জমা দেওয়া হয়নি। ই-মেইলে তিনি (ডা. মুরাদ হাসান) এ পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন।

 

 

 

https://web.facebook.com/muradhassanmp/?ref=nf&hc_ref=ARQLDxacjWsryUGyBgRqtiB3tpglPeZjF0dBL6udE8xbLpa6cyAYp7oYrKd3eX2czZo

আ. লীগ থেকে বহিষ্কার হলেন মুরাদ
                                  

জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে ডা. মুরাদ হাসানকে বহিষ্কার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের এক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আজ বিকেলে জেলা ওয়ামী লীগের এক জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগকে জানানো হবে। কেন্দ্র চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। 

এর আগেই অবশ্য মঙ্গলবার বিকেলে সচিবালয়ে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগ থেকে ডা. মুরাদকে অব্যাহতি দেওয়া হবে। 

ডা. মো. মুরাদ হাসান একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামালপুর-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালেও তিনি একই আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন। 

 ২০১৯ সালে সরকার গঠনের সময় মুরাদ হাসানকে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়। পরে ৫ মাসের মাথায় ওই বছরের ১৯ মে তার দফতর পরিবর্তন করে তথ্য প্রতিমন্ত্রী করা হয়।
ডা. মুরাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএনপি,ফখরুল
                                  

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশালীন ও শিষ্টাচারবহির্ভূত বক্তব্যের জেরে তথ্য ও সম্প্রচার  প্রতিমন্ত্রীর পদ হারানো ডা. মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে সোমবার (৬ ডিসেম্বর) জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।  

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সোমবার রাত ৮টায় দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

বিএনপি মহাসচিব জানান, সভায় অবৈধ সরকারের তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান দেশনেত্রী খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং জিয়া পরিবারের সদস্য বিশেষ করে নারী সদস্যদের নিয়ে যে চরম অশালীন, অরুচিকর বক্তব্য, তার সব রাজনৈতিক ও সামাজিক শিষ্টাচারবিবর্জিত সম্মানহানিকর কুৎসিত বক্তব্যের তীব্র  সমালোচনা, নিন্দা ও প্রতিবাদ করা হয়। সভা মনে করে, রাষ্ট্রীয় দায়িত্বশীল পদে থেকে এই ধরনের নারীবিদ্বেষী, বর্ণবাদী, সমাজবিরোধী বক্তব্য ও সংবিধানবিরোধী এই বক্তব্যের মাধ্যমে সমগ্র নারী-সমাজ এবং মানবতাকে হেয় করা হয়েছে। 

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সভায় দাবি উঠেছে-২৪ ঘণ্টার মধ্যে ডা. মুরাদকে জাতীয় সংসদ ও মন্ত্রিসভা থেকে অপসারণ এবং প্রকাশ্যে জনগণের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণেরও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

কে এই ডা: মুরাদ?
                                  

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের সঙ্গে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির ফাঁস হওয়া অডিও নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড়। অন্যদিকে বিকৃত, যৌন হয়রানিমূলক ও নারীবিদ্বেষী বক্তব্য দিয়ে নেট দুনিয়া এবং গণমাধ্যমে সম্প্রতি সমালোচনা ও তোপের মুখে পড়েন তিনি। এরপরই তাকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কে এই মুরাদ? কোথা থেকে উঠে এলেন তিনি? তার পড়াশোনা কোথায়? রাজনৈতিক ক্যারিয়ার কেমন ছিল? এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাঠকদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরা হলো-

ব্যক্তিগত তথ্যাদি:

ডা.মো. মুরাদ হাসান ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ অক্টোবর জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলাধীন দৌলতপুর গ্রামে এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম অ্যাড. মতিয়র রহমান তালুকদার, মাতা. মনোয়ারা বেগম। তার পিতা ছিলেন একজন বরেণ্য রাজনীতিবিদ ও প্রখ্যাত আইনজীবী। তিনি রণাঙ্গনে সম্মুখ সমরে অংশগ্রহণকারী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক (জামালপুর-শেরপুর) ও মুজিব নগর সরকার কর্তৃক নিয়োগকৃত ম্যাজিস্ট্রেট। তিনি জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। তিনি ১৯৮৬-২০০৩ মেয়াদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ছিলেন। তিনি জামালপুর ‘ল’ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ, জাতীয় আইনজীবী সমিতির সহ-সভাপতি এবং জামালপুর জেলা বারের ৬ (ছয়) বার নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন।

শিক্ষা জীবন:

ডা. মো: মুরাদ হাসান শৈশবে জামালপুর শহরস্থ কিশলয় আদর্শ বিদ্যা নিকেতনে তার প্রাথমিক শিক্ষা জীবন শুরু করেন। অত:পর তিনি ১৯৯০ সালে জামালপুর জেলা স্কুল হতে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে প্রথম বিভাগ (স্টার মার্ক) পেয়ে এস.এস.সি পাশ করেন এবং ১৯৯২ সালে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা নটরডেম কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে প্রথম বিভাগে (স্টার মার্ক) পেয়ে এইচ.এস.সি পাশ করেন। তিনি ২০০১ সালে ঐতিহ্যবাহী ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হতে কৃতিত্বের সাথে MBBS পাশ করেন। পরবর্তীতে তিনি ২০০৪-২০০৫ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে ‘Plastic & Reconstructive Surgery’র ওপর Post Graduation Training (PGT) সম্পন্ন করেন এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হতে ২০১১ সালে Radiation Oncology’র ওপর এম. ফিল ডিগ্রি অর্জন করেন।

রাজনৈতিক জীবন:

তিনি ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার ‘কার্যকরী সদস্য’ ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার ‘সাংগঠনিক সম্পাদক’, ২০০০ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার ‘সভাপতি’, ২০০৩ সালে ৫ম কংগ্রেস এ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ‘কার্যকরী সদস্য’ নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জামালপুর জেলা শাখার ‘কার্যকরী সদস্য’, ২০১৪ সালে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের ‘কার্যকরী সদস্য’, ২০১৫ সালে জামালপুর জেলার ‘স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক’ নির্বাচিত হন। এ ছাড়াও, ২০১৭ সালে তিনি ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির কেন্দ্রীয় কমিটির ‘কার্যকরী সদস্য’ নির্বাচিত হয়ে স্বাধীনতার বিপক্ষ শক্তির বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনে কার্যকর ভূমিকা পালন করে আসছেন।

সংসদ সদস্য:

তিনি ২০০৮ সালের ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়ে ১৪১, জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ী, মেস্টা ও তিতপল্যা) সংসদীয় আসন থেকে বিপুল ভোটে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে মহান জাতীয় সংসদের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসেবে বিভিন্ন দেশ সফর করেন। এরপর ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৪১, জামালপুর-৪ সংসদীয় আসন থেকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে ২য় বারের মতো সংসদ সদস্য হন। তিনি ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। তারপর ১৯ মে ২০১৯ খ্রি. তারিখ থেকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

অন্যান্য সম্পৃক্ততা:

তিনি স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) এবং বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ)-এর আজীবন সদস্য। এ ছাড়া, তিনি জাতীয় ও সামাজিক জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নিয়মিত আলোচক হিসাবে টেলিভিশনে টকশো, বিভিন্ন সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামে সম্পৃক্ত রয়েছেন। তাছাড়া, তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকায় ২০০১ সাল থেকে লক্ষাধিক দু:স্থ ও অসুস্থ রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছেন।

পারিবারিক জীবন:

ব্যক্তিগত জীবনে ডা: মো: মুরাদ হাসান এক কন্যা ও এক পুত্রসন্তানের জনক। তার স্ত্রী ডা. জাহানারা এহসানও পেশায় একজন ডাক্তার।

ডা. মুরাদ ছাত্রদল নেতা ছিলেন: ফখরুল
                                  

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ শাখা ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদক ছিলেন।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে স্বৈরাচার পতন ও গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ১৯৯০ সালের ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের ব্যানারে আয়োজিত এই আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন তৎকালীন ডাকসুর ভিপি মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান।

ডা. মুরাদকে ‘ভূঁইফোড়’ ডাক্তার দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদক ছিলেন। পরে তিনি ছাত্রলীগে যোগ দেন।

ডা. মুরাদ কয়েকদিন আগে ভয়াবহ বক্তব্য দিয়েছেন উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, সেদিন তিনি বলেছেন ‘আমি যা কিছু করছি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই করছি। প্রধানমন্ত্রী সবকিছু জানেন।’ প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্পষ্ট জানতে চাই, এই ভয়াবহ উক্তি যদি একজন মন্ত্রী করতে পারে, তাহলে আপনার সরকারের অবস্থান কী আমরা জানতে চাই। উত্তর দিতে হবে। কারণ আপনাকে জড়িয়ে কথা বলা হয়েছে। আমরা তীব্রভাবে এর প্রতিবাদ জানাই। ধিক্কার জানাই।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে এই সরকারের সঙ্গে গণতন্ত্রের কোনো সম্পর্ক নেই। এই সরকার জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। যেহেতু তারা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে। সেকারণে তারা সামাজিক মাধ্যমে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে অত্যন্ত জঘন্য নিকৃষ্ট প্রচার চালানো শুরু করেছে।

বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফজলুল হক মিলনের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপির বিশেষ সম্পাদক ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ড. আসাদুজ্জামান রিপন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, ডাকসুর সাবেক জিএস বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাবেক ছাত্র নেতা জহির উদ্দিন স্বপন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, ডাকসুর সাবেক এজিএস বিএনপি নেতা নাজিম উদ্দিন আলম, ডেমোক্রেটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন মনি, জাগপার একাংশের সভাপতি খন্দকার লুৎফর রহমান, জাগপার একাংশের যুগ্ম-সম্পাদক আসাদুর রহমান খান, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কামরুজ্জামান রতন, বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন, বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম আলীম, কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সদস্য ইশরাক হোসেন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকু, বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক ঢাকা কলেজের সাবেক ভিপি মীর  সরাফত আলী সপু, শ্রমিক দলের যুগ্ম-সম্পাদক মোস্তাফিজুল করিম মজুমদার, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদকে পদত্যাগের নির্দেশ
                                  

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে আগামীকালকের মধ্যে মন্ত্রীসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সোমবার (৬ ডিসেম্বর) রাতে তার বাসভবনে ডা. মুরাদ হাসানের বিষয়ে   সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অসৌজন্যমূলক বক্তব্য দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডা. মুরাদ হাসানকে আগামীকালকের মধ্যে মন্ত্রীসভা থেকে পদত্যাগ করতে বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ সন্ধ্যায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এবিষয়ে কথা হয়েছে এবং আমি আজ রাত ৮ টায় প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে বার্তাটি পৌঁছে দিই।

জাকের পার্টির পীর সাহেবের বাণী সত্য বললেন ,আইভি
                                  

 

স্টাফ রিপোর্টার 

চুনকা কন্যা সেলিনা হায়াত আইভী মাজার পীরদের সম্মান করেন। কঠিন সময়ে পীর বা পীরজাদাদের তিনি দোয়া নেন। ২০১১ সালে সিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী ঘোষণার আগে আইভীর অবস্থা ছিলো শোচনীয়। তখন আইভী আটরশি পীরজাদা ও জাকের পার্টি চেয়ারম্যান খাজা মোস্তফা আমীর ফয়সল মুজাদ্দেদীর সাথে সাক্ষাৎ করেন। তিনি পীরজাদার দোয়া নেন। পীরজাদা তাকে দোয়া ও সমর্থন করেন। সেই নির্বাচন নিয়ে একটি ভবিষ্যত বাণী করেছিলো আটরশি পীরজাদা । সেই বাণী সত্য হয়েছে।

 

এসব ব্যাপারে গতকাল শহরের জিমখানা মাঠে জাকের পার্টির ঢাকা বিভাগীয় দাওয়াতী ইসলামী মহা জলছায় হাজির হয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াত আইভী বলেন, আমার এখানে বক্তব্য

দেওয়ার কথা নয়, এতো বড় দুঃসাহস আমার নাই। ভাইয়ের সামনে ভাইজানের সামনে কথা বলবো। ভাইজান যেহেতু বলেছেন সেজন্য দাড়িয়েছি। আমি আপনাদেরই একজন। ভাইজান যখন বক্তব্য করছিলো আমি পিছনে দাঁড়িয়ে ছিলাম, আমি উনার কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনছিলাম। উনি যতগুলো কথা বলেছেন প্রত্যেকটা কথা আমাদের ইসলামের কথা। আপনারা দেখেন মেম্বারের উপরে দাঁড়িয়েও মানুষকে হত্যা করার কথা বলে। এটা কোনো ইসলাম হতে পারে না। এই বাংলাদেশ সকল ধর্মের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ, এই বাংলাদেশ ফরিদপুরীর বাংলাদেশ, এই বাংলাদেশ শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ।

 

তিনি বলেন, ২০১১ সালে আমি নির্বাচন করেছিলাম। ওই সময় আমার অবস্থা শোচনীয় বলা চলে, যে দল কাকে দেবে ,কাকে দেবে না। ঠিক সেই সময়ে আমি ভাইজানের সাথে দেখা করেছিলাম, উনি আমাকে দোয়া করেছিলেন, আমাকে উনি বলেছিলেন আপনিই পাস করবেন। উনি যে পীর- মুর্শিদ ,তাদের কথা যে সত্য হয় ,উনি প্রমাণ করেছেন। আমার সৌভাগ্য আরেকটা নির্বাচনের আগে ভাইজান নারায়ণগঞ্জে এসেছেন। আমি তার কাছে দোয়া চাচ্ছি। আমার দল আওয়ামী লীগ যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় আমি নৌকা নিয়ে নির্বাচন করতে চাই। আমি আপনাদের (জাকের পার্টি) সহযোগিতা চাই। ভাইজানের সহযোগিতা চাই। আমরা শান্তির বাংলাদেশ চাই। আমরা অলি আল্লাহর বাংলাদেশ চাই। অনুষ্ঠান থেকে আগামী নির্বাচনে মেয়র পদে বর্তমান মেয়র আইভীকে পুনরায় সমর্থন জানান জাকের পার্টির চেয়ারম্যান পীরজাদা খাজা মোস্তফা আমীর ফয়সল মুজাদ্দেদী। এসময় আওয়ামী লীগ নেত্রী মেয়র আইভী পীরজাদা খাজা মোস্তফা আমীর ফয়সল মুজাদ্দেদীর পা ছুঁয়ে দোয়া নেন।

আন্দোলনের মধ্য দিয়েই এই সরকারকে বিদায় করা হবে : ফখরুল
                                  

আন্দোলনের মধ্য দিয়েই এই সরকারকে বিদায় করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, সবাই ঐক্যবদ্ধ হোন। মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য, গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধারের জন্য, দেশনেত্রীকে মুক্তির জন্য তরুণ-যুবকদের জেগে উঠতে হবে।

তরুণ ও যুবকদের ছাড়া এদেশে কোনো আন্দোলন হয়নি। অবশ্যই এই সরকারকে সরাতে হবে। একটি নিরেপক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে এই সরকাকে বাধ্য করা হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকারকে বিভিন্ন দেশ থেকে চাপ দিয়েছে। সরকার মিথ্যা কথা বলছে। আপনারা জনগণের সাথে প্রতারণা করছেন।

আপনারা বলছেন আইনের কারণে বেগম জিয়াকে বিদেশে যেতে দেয়া হচ্ছে না। আপনারা মিথ্যা কথা বলছেন। আইন অনুযায়ী বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানো যায়। বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হলে আপনাদের (সরকার) কোনো দিনও মাফ করবে না দেশের জনগণ।

তিনি বলেন, এক হাজার ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়েছে। অর্ধেক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ হেরে গেছে। পতন শুরু হয়ে গেছে।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বাক আমানউল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান, বেগম সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান শাজাহান ওমর, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তৈমুর আলম খন্দকার, আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন প্রমুখ।

মেয়র পদ থেকে বরখাস্ত জাহাঙ্গীর আলম
                                  

মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করায় আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) বিকেলে সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এর আগে গাজীপুর সিটির জন্য তিন সদস্যে প্যানেল মেয়র গঠন করা হয়।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, গাজীপুরের মেয়র পদ থেকে জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আজকের মধ্যেই এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি হবে। সেখানে একজনকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, জমি দখলসহ তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ মন্ত্রণালয়ে জমা হয়েছে। অভিযোগগুলো প্রমাণিত হলে তাকে মেয়র পদ থেকে অপসারণ করা হবে।

গত ১৯ নভেম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের সংখ্যা নিয়ে কটূক্তি করায় গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদসহ দল থেকে আজীবনের জন্য জাহাঙ্গীর আলমকে বহিষ্কার করা হয়। তার স্থলে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয় জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ মণ্ডলকে।

সাংবাদিক শামীম মাশরেকীর ইন্তেকাল
                                  

ডিস্ট্রিক্টনিউজ২৪-এর উপদেষ্টা সম্পাদক মো. শামীম মাশরেকী মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ... রাজিউন)। মঙ্গলবার সকালে ট্রেনে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ থেকে ঢাকা আসার পথে তিনি হার্ট অ্যাটাক করেন। জিআরপি পুলিশ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বয়স হয়েছিল ৫৫ বছর।

শামীম মাশরেকী স্ত্রী ও এক ছেলে রেখে গেছেন। মঙ্গলবার ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সদরে জানাজা শেষে মা-বাবার কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাসান হাফিজ ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান। এ ছাড়া সাব এডিটরস কাউন্সিলসহ বিভিন্ন সংগঠন শোক জানিয়েছে।

স্মারকলিপিটি গুরুত্ব সহকারে পরীক্ষা করে পরে সিদ্ধান্ত আইনমন্ত্রী
                                  

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি চেয়ে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের সংগঠন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের দেওয়া স্মারকলিপি গ্রহণের পর আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, স্মারকলিপিটি গুরুত্ব সহকারে পরীক্ষা করে পরে সিদ্ধান্ত জানানো হবে। 

মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে আইন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্মারকলিপি প্রদান পরবর্তী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য সচিব ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল স্মারকলিপিটি আইনমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, আমি ফৌজদারি কার্যবিধির ধারায় কি আছে সেটা নিয়ে এখনি কথা বলছি না। কারণ আজ আপনারা আমার মেহমান। আমিও আপনাদের পরিবারের একজন। 

এর আগে আইনমন্ত্রীকে দেওয়া দুই পাতার ওই স্মারকলিপিতে বলা হয়, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা অবনতি ঘটায় আমরা উদ্বিগ্ন। তার জীবন রক্ষার্থে মানবিক দিক বিচেনায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে প্রেরণ করা অতীব জরুরি। এই পরিপ্রেক্ষিতে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারা মতে শর্তহীনভাবে নতুন প্রজ্ঞাপন জারি করে অথবা বিশেষ আদেশে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিতে সরকারের প্রতি দাবি জানানো হয়।  

স্মারকলিপি প্রদানের পর বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিরি সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, সাবেক সম্পাদক ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, আহমেদ আজম খান, ব্যারিস্টার মাহবুবু উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী, সমিতির বর্তমান সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস কাজল প্রমুখ। 

খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে গভীর চক্রান্তে মেতে উঠেছে: রিজভী
                                  

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকারের নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ওপর নির্দয় হামলা এবং নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার ও মিথ্যা মামলা দিয়ে নাজেহাল করছে। অন্যদিকে খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে গভীর চক্রান্তে মেতে উঠেছে। তিনি যাতে সুস্থ হতে না পারেন, সেজন্যই বিদেশে উন্নত চিকিৎসার বিষয়ে গড়িমসি করছে। সরকারের এসব উদ্দেশ্য রহস্যজনক। খালেদা জিয়াকে ধ্বংস করতে এক বিষাক্ত নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে সরকার।

মঙ্গলবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।রিজভী বলেন, কর্তৃত্ববাদী ক্ষমতাসীনরা মানবতা, বিবেক ও সহমর্মিতার ধার ধারে না। নিজেদের ক্ষমতাকে নিষ্কণ্টক করার জন্য ক্রুর জিঘাংসায় ভয়ানক সিদ্ধান্ত নিতে তারা পিছপা হয় না। পথের কাঁটা সরাতে তারা সব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভেঙে ফেলে। আইনি প্রক্রিয়া, বিচার বিভাগ, প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন, গণমাধ্যম তথা গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার জন্য যেসব প্রতিষ্ঠান কাজ করে, তা ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, গুরুতর অসুস্থ খালেদা জিয়ার মৌলিক মানবাধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে সরকার। তাদের কাছে এটাই স্বাভাবিক। তবে খালেদা জিয়ার কিছু হলে দেশের কোটি কোটি জনতা হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না। আমরা আবারও আহবান জানাচ্ছি, অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশ পাঠাতে উদ্যোগ গ্রহণ করুন।

এসময় তিনি কেন্দ্র ঘোষিত ঢাকাসহ দেশব্যাপী কর্মসূচিতে পুলিশের হামলায় শতাধিক নেতাকর্মী আহত এবং প্রায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

শিক্ষার্থীদের গণপরিবহনে অর্ধেক ভাড়া নিশ্চিত করার দাবি জি এম কাদেরের
                                  

নিজস্ব প্রতিনিধি

সারাদেশে গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের।

গণপরিবহনের ভাড়া নিয়ে দেশব্যাপী চলমান অসন্তোষের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমতে শুরু করেছে। তাই তেলের দাম কমাতে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে সরকারকে। পাশাপাশি গণপরিবহণের ভাড়া নিয়ে সড়কের নৈরাজ্য কমাতে হবে। এছাড়া ছাত্রদের জন্য হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে হবে।’সম্প্রতি রাজধানীর একটি বাসে এক কলেজ শিক্ষার্থী অর্ধেক ভাড়া দিতে চাইলে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে ওই বাসটির হেলপার তাকে ‘ধর্ষণের হুমকি দেন’ বলে অভিযোগ আসে। এ নিয়ে কলেজশিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে সড়ক অবরোধ করেন, যা দেশজুড়ে আলোড়ন তুলে।

এছাড়াও দেশের নানা এলাকায় ভাড়া নিয়ে পরিবহন শ্রমিকদের সঙ্গে যাত্রীদের দ্বন্দ্বের খবর আসছে।

জি এম কাদের এসব ইস্যুতে বলেন, ‘সড়কে পরিবহণ শ্রমিকরা যাত্রীদের সাথে যে আচরণ করছে তা মেনে নেওয়া যায় না। ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ার অজুহাতে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ বাস ভাড়া যতটুকু বাড়িয়েছে শ্রমিকরা যাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করছে তার চেয়েও বেশি। এতে প্রতিদিন বাসে চড়ে গন্তব্যে যেতে হেনস্তা হচ্ছেন সাধারণ যাত্রীরা, প্রতিবাদ করলে সইতে হয় অবর্ননীয় নির্যাতন। আবার ছাত্রদের কাছ থেকে হাফ ভাড়ার পরিবর্তে আদায় করা হচ্ছে পুরো ভাড়াই, ছাত্রী ও নারীদের সাথে অশালীন আচরণ করছে শ্রমিকরা।’

গত ৩ নভেম্বর রাত থেকে ডিজেলে ও কোরোসিনের দাম লিটার প্রতি ১৫ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে সরকার। ডিজেলের দাম কমাতে ট্রাক, লরি, কাভার্ডভ্যান মালিক, শ্রমিকরা সারাদেশে পরিবহন ধর্মঘট ডাকে। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেন বাস মালিক, শ্রমিকরা।

তেলের দাম বাড়ানোয় ক্ষোভ প্রকাশ করে জি এম কাদের বলেন, ‘সরকারের তেলের দাম কমানোর কোন চিন্তা আছে বলে মনে হয় না। আবার তেলের দাম বাড়ার সাথে সাথে পরিবহন ব্যয় বাড়ার অজুহাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে আকাশচুম্বী হয়ে যাচ্ছে। একারণে সাধারণ মানুষ সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে।

এক ডজন এমপি-মন্ত্রীর নাম প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে
                                  

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে ৪২৪টিতে নৌকার প্রার্থী পরাজিত হয়েছে। নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের কাছে হেরেছেন অন্তত ৪০০ জন।এর মধ্যে জামানতও হারিয়েছেন একাধিক নৌকার প্রার্থী। ১৩১ ইউপিতে প্রতিযোগিতা করতে পারেননি, এমনকি দ্বিতীয়-তৃতীয় অবস্থানেও ছিলেন না ক্ষমতাসীন দল মনোনীতরা। এই ‘নৌকাডুবি’র পেছনে ইন্ধন রয়েছে স্থানীয় এমপি-মন্ত্রী এবং প্রভাবশালী নেতাদের। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক রিপোর্টে এমনটাই উঠে এসেছে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নৌকার বিপক্ষে কাজ করা এক ডজন মন্ত্রী-এমপির নাম দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টেবিলে। গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে এ তালিকা হস্তান্তর করেন দলের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকরা।

 

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, নৌকা ডোবানো এমপি-মন্ত্রীদের তালিকা দেখে ক্ষুব্ধ দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যারা বিদ্রোহী তাদের ব্যাপারে আমাদের যে চলমান সিদ্ধান্ত রয়েছে সেটা বহাল থাকবে। আর যারা বিদ্রোহীদের মদদদাতা, তারা জেলা-উপজেলা নেতা হোক, কিংবা মন্ত্রী-এমপি হোক, তদন্তসাপেক্ষে যদি প্রমাণিত হয় বিদ্রোহীদের মদদ দিয়েছে, তাহলে আগামীতে তাদের কোনো পদে রাখব না, কোনো এমপি মদদদাতা হিসেবে প্রমাণিত হলে তাদের মনোনয়নও দেব না। ’

দলের আট বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিদ্রোহীদের পক্ষে কাজ করা এবং নৌকাডুবির নেপথ্যে কাজ করা এক ডজন এমপির মধ্যে দুজন মন্ত্রিসভার সদস্যও রয়েছেন। একজন ঢাকা বিভাগের আরেকজন সিলেট বিভাগের। এমপিদের মধ্যে রাজশাহীর একজন, খুলনার একজন, যশোরে একজন, সাতক্ষীরায় একজন, নরসিংদীর দুজন, টাঙ্গাইলের একজন, মৌলভীবাজারে একজন, শেরপুরে একজন, জামালপুরে দুজন এবং নেত্রকোনায় একজনের নাম এসেছে তালিকায়। এমপি-মন্ত্রী  ছাড়াও জেলা ও উপজেলার শীর্ষ নেতার নাম এসেছে এ তালিকায়। আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন বলেন, ‘দলীয় সভানেত্রী মাঠের চিত্র চেয়েছিলেন। আমরা বাস্তব পরিস্থিতি লিখিত আকারে নেত্রীকে দিয়েছি। ইউপি নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রী ও নেতাদের কার কী ভূমিকা সেটিই তুলে ধরেছি। বাকিটা নেত্রীর সিদ্ধান্ত। ’

জানা গেছে, প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে মোট ১ হাজার ১৯৮টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা দলীয় বিদ্রোহী, স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দলের প্রার্থীদের কাছে পরাজিত হয়েছেন নৌকার প্রার্থী। অনেক ইউপিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জামানতও হারিয়েছেন। ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, যাকেই নৌকা দেওয়া হয়েছে, দলের প্রতিটি নেতা-কর্মীর উচিত ছিল ঐক্যবদ্ধভাবে তার পক্ষে কাজ করা। আমরা দেখেছি, অনেক জেলা-উপজেলায় এর ব্যত্যয় ঘটেছে। সেই বিষয়টিই সাংগঠনিক রিপোর্টে তুলে ধরেছি। বিদ্রোহী এবং বিদ্রোহীদের মদদদাতাদের ব্যাপারে নেত্রী সিরিয়াস। এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবেন নেত্রী। মন্ত্রী-এমপিদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে?-জানতে চাইলে মির্জা আজম বলেন, ‘এমপিদের এখন লিখিতভাবে সতর্ক করবেন। পরবর্তীতে মনোনয়ন বঞ্চিত করাসহ দলের পদ-পদবি থেকে বাদ দিতে পারেন দলীয় সভানেত্রী। ’ ময়মনসিংহ বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, ‘যত বড় ব্যক্তিই হোক, দলের ঊর্ধ্বে কেউ নন। দল করতে হলে দলীয় সিদ্ধান্ত মানতে হবে। যারাই ইউপি নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করেছেন, তাদের বিরুদ্ধেই আমরা রিপোর্ট উপস্থাপন করেছি দলীয় সভানেত্রীর কাছে। এখানে অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তিও রয়েছেন। ’ 

গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক শেষে দলের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকরা নির্বাচন সম্পর্কে রিপোর্ট দিয়েছেন, সে রিপোর্টে তারা নির্বাচনে যারা বিদ্রোহী ছিল এবং বিদ্রোহীদের যারা মদদদাতা ছিল তাদের সম্পর্কেও রিপোর্ট দিয়েছেন। লিখিত রিপোর্ট এবং তারা নিজেরা মৌখিকভাবেও যার যার এলাকায় কতজন বিদ্রোহী হলো, কারা কারা মদদ দিল, এ রকম অনেক নাম এসেছে। বিদ্রোহীদের যারা মদদ দিয়েছেন তারা নেতা হলে তাদেরও শাস্তি পেতে হবে। জনপ্রতিনিধি হলে, মন্ত্রী হোক, এমপি হোক প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে।  

জাহাঙ্গীরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দু্ই-একদিনে: তাজুল
                                  

দু্ই একদিনের মধ্যে গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় আইন পর্যালোচনা করছে বলেও জানান তিনি।

সোমবার সকালে মন্ত্রিসভার বৈঠক সভা শেষে এসব কথা জানান মন্ত্রী। এসময় তিনি বলেন, “আইনটা দেখা হচ্ছে। আমাদের ডিপার্টমেন্ট আছে, তারা পর্যালোচনা করছে।”

আইনি পর্যালোচনা শেষে পদক্ষেপ নিতে কতদিন লাগতে পারে জানতে চাইলে তাজুল ইসলাম বলেন, “দুই-একদিন লাগতে পারে।“

সেক্ষেত্রে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, “পর্যালোচনা হোক, তারপরে বলব। মন্ত্রণালয় পর্যালোচনা করবে। আইনগতভাবে তার অবস্থানটা কী হবে এখন, সেটা পর্যালোচনা করছি।”

দলীয় প্রতীকে নির্বাচিত হওয়ায় জাহাঙ্গীর আর পদে থাকতে পারেন কি-না, এমন প্রশ্নে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, “আইনে যে সমস্ত বিষয় আছে, তা পর্যালোচনা করার পর বলা যাবে।”

এর আগে গেলো সেপ্টেম্বর মাসে মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের কথোপকথনের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

এতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জেলার কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করা হয়েছে বলে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা অভিযোগ করেন।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান। পরে ১৯ নভেম্বর মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে আওয়ামী লীগ থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হয়।
২০১৮ সালে গাজীপুর সিটি করপোরশেন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হন জাহাঙ্গীর।

প্রধানমন্ত্রীকে হয়তো ভুল বোঝানো হয়েছে: বহিষ্কারের পর জাহাঙ্গীর
                                  

জাহাঙ্গীর আলম। তিনি গাজীপুর নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকও।

আজ শুক্রবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় জাহাঙ্গীর আলমকে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি এবং দলীয় সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বৈঠকে উপস্থিত এক সাংগঠনিক সম্পাদক এ তথ্য জানান প্রথম আলোকে

এ সিদ্ধান্তের পর জাহাঙ্গীর আলম প্রথম আলোকে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে হয়তো ভুল বোঝানো হয়েছে বা ভুল মেসেজ দেওয়া হয়েছে। উনি সঠিকটা জানলে হয়তো কোনো দিনই ব্যবস্থা নিতেন না।’

আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গত সেপ্টেম্বর মাসে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের কথোপকথনের ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে জাহাঙ্গীরের মন্তব্য ঘিরে স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাংশ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। তাঁরা জাহাঙ্গীরের বহিষ্কার দাবি করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৩ অক্টোবর কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে জাহাঙ্গীর আলমকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। ১৮ অক্টোবরের মধ্যে এর জবাব দেন জাহাঙ্গীর।


   Page 1 of 30
     রাজনীতি
মা বোনদের কাছে ক্ষমা চেয়ে যা বল্লেন মুরাদ
.............................................................................................
আ. লীগ থেকে বহিষ্কার হলেন মুরাদ
.............................................................................................
ডা. মুরাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএনপি,ফখরুল
.............................................................................................
কে এই ডা: মুরাদ?
.............................................................................................
ডা. মুরাদ ছাত্রদল নেতা ছিলেন: ফখরুল
.............................................................................................
তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদকে পদত্যাগের নির্দেশ
.............................................................................................
জাকের পার্টির পীর সাহেবের বাণী সত্য বললেন ,আইভি
.............................................................................................
আন্দোলনের মধ্য দিয়েই এই সরকারকে বিদায় করা হবে : ফখরুল
.............................................................................................
মেয়র পদ থেকে বরখাস্ত জাহাঙ্গীর আলম
.............................................................................................
সাংবাদিক শামীম মাশরেকীর ইন্তেকাল
.............................................................................................
স্মারকলিপিটি গুরুত্ব সহকারে পরীক্ষা করে পরে সিদ্ধান্ত আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে গভীর চক্রান্তে মেতে উঠেছে: রিজভী
.............................................................................................
শিক্ষার্থীদের গণপরিবহনে অর্ধেক ভাড়া নিশ্চিত করার দাবি জি এম কাদেরের
.............................................................................................
এক ডজন এমপি-মন্ত্রীর নাম প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে
.............................................................................................
জাহাঙ্গীরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দু্ই-একদিনে: তাজুল
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীকে হয়তো ভুল বোঝানো হয়েছে: বহিষ্কারের পর জাহাঙ্গীর
.............................................................................................
আ.লীগ থেকে বহিষ্কার মেয়র জাহাঙ্গীর
.............................................................................................
ইউপি তে আ.লীগ এর ৮ বিদ্রোহী প্রার্থী বহিষ্কার
.............................................................................................
ক্রসফায়ারের হুমকি দিচ্ছে আমাকেঃ নুর
.............................................................................................
আজ বিকালে সিদ্ধান্ত হবে ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রতীক থাকবে কি থাকবে না
.............................................................................................
আ.লীগ নির্বাচনের আগের রাতে নির্বাচন করে:
.............................................................................................
‘তেল-গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধিতে জনদুর্ভোগ বেড়েছে’
.............................................................................................
সংবিধান সমুন্নত রাখতে সিপাহীরা বিদ্রোহ করেছিল: ইনু
.............................................................................................
সরকার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ: মিনু
.............................................................................................
৭২-এর সংবিধান পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সংবিধান: আমু
.............................................................................................
নৌকার বিজয় ঠেকাতে ঐক্যবদ্ধ আ.লীগ-বিএনপি
.............................................................................................
খোকার কবরে বিএনপির শ্রদ্ধা
.............................................................................................
সাতক্ষীরায় ৯ বিদ্রোহী প্রার্থী আ.লীগ থেকে বহিষ্কার
.............................................................................................
মানুষ দেখতে চায় তারেক রহমান দেশে ফিরে আসুক: কাদের
.............................................................................................
প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ইউপি ভোট চায় আওয়ামী লীগ
.............................................................................................
কুমিল্লার ঘটনায় ইকবালসহ চারজনের ৩ দিনের রিমান্ড
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জবি ছাত্রদলের বিক্ষোভ
.............................................................................................
‘নৌকায় ভোট না দিলে কবরস্থানে জায়গা দেব না’
.............................................................................................
‘বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীরাই জাতীয় চার নেতার হত্যাকারী’
.............................................................................................
সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন যথাসময়েই হবে: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
এ সরকারকে ক্ষমতায় রেখে সেটা করা সম্ভব হবে না: খন্দকার মোশাররফ
.............................................................................................
চেয়ারম্যান পদে স্বামী-স্ত্রীর ভোটযুদ্ধ
.............................................................................................
মানুষ এখন আর ভালো খেতে পারে না: ফখরুল
.............................................................................................
আ.লীগ সহিষ্ণু বলেই বিএনপি এখনও রাজনীতি করছে
.............................................................................................
সবার আগে আ. লীগের বিচার হবে: ফখরুল
.............................................................................................
বিএনপিকে ছাড়াই নির্বাচনে প্রস্তুত থাকবে আ.লীগ
.............................................................................................
কারও চাপে জাপার মহাসচিব নির্বাচন না করার আহ্বান
.............................................................................................
বিদ্রোহীরা মনোনয়ন তো নয়ই, পদও পাবেন না: কাদের
.............................................................................................
সব শক্তি এক করে সরকার পতনের আন্দোলনে নামতে হবে: গয়েশ্বর
.............................................................................................
বাংলাদেশ চাইলে আগামী নির্বাচনে সহায়তা দিতে প্রস্তুত জাতিসংঘ
.............................................................................................
আলোচনায় বড় বড় কথা, মাঠে নেই শীর্ষ নেতারা: বিএনপির বৈঠকে ক্ষোভ
.............................................................................................
খালেদার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
নরসিংদী সদরে বিনা ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পথে আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া
.............................................................................................
সোনারগাঁয়ে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে মিছিল, সমাবেশ
.............................................................................................
একই ভুল আবার করলে বিএনপি আরও ছোট হয়ে যবে: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এম.এ মান্নান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ খন্দকার আজমল হোসেন বাবু, সহ সম্পাদক কাওসার আহমেদ র্বাতা সম্পাদক আবু ইউসুফ আলী মন্ডল, সহকারী বার্তা সম্পাদক শারমিন আক্তার । বার্তা বিভাগ ফোন০১৬১৮৮৬৮৬৮২

ঠিকানাঃ বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়- নারায়ণগঞ্জ, সম্পাদকীয় কার্যালয়- জাকের ভিলা, হাজী মিয়াজ উদ্দিন স্কয়ার মামুদপুর, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ। শাখা অফিস : নিজস্ব ভবন, সুলপান্দী, পোঃ বালিয়াপাড়া, আড়াইহাজার, নারায়ণগঞ্জ-১৪৬০, রেজিস্ট্রেশন নং 134 / নিবন্ধন নং 69 মোবাইল : 01731190131, 01930226862, E-mail : mannannews0@gmail.com, web: notunbazar71.com, facebook- notunbazar / সম্পাদক dhaka club
    2015 @ All Right Reserved By notunbazar71.com

Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop