| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   শিক্ষা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
স্কুলে যেতে সাঁকো তৈরি, শিশুদের মুখে হাসি

সারা দেশের মতো গাজীপুরেও স্কুল ও কলেজ খুলেছে। শিশুদের উপস্থিতিতে মুখর হয়ে ওঠে বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ।

বন্যার পানির কারণে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে ১৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলেনি। তবে উপজেলার ভাউমান টালাবহ মডেল হাইস্কুলের অভিভাবক ও শিক্ষকেরা মিলে তৈরি করেছেন বাঁশের সাঁকো। সেই সাঁকো দিয়ে বিদ্যালয়ে গিয়ে ক্লাস করেছে শিক্ষার্থীরা।

টালাবহ গ্রামের শিক্ষার্থী মিম আক্তার বলে, ‘স্কুলের মাঠে পানি জমে থাকলেও স্যার ও অভিভাবকেরা স্কুলে যাওয়ার জন্য বাঁশের সাঁকো তৈরি করে দিয়েছেন। কষ্ট হলেও দীর্ঘদিন পর স্কুল খুলেছে। তাই চলে এসেছি।’

ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান বলে, ‘বহুদিন পর স্কুলে এসে খুবই ভালো লাগছে। বন্ধু ও স্যারদের সঙ্গে দেখা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা ক্লাস করেছি।’

সারা দেশের মতো গাজীপুরেও স্কুল ও কলেজ খুলেছে। গতকাল রোববার সকালেই পরিপাটি স্কুল পোশাক পরা শিশুদের উপস্থিতিতে মুখর হয়ে ওঠে বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ। স্কুলের ফটকে শিক্ষকেরা অভ্যর্থনা জানান শিক্ষার্থীদের। স্কুলটি সাজানো হয় বাহারি সাজে।

শিক্ষক ও প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীরা থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে শিশুদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেন। জীবাণুনাশক দিয়ে হাত পরিষ্কার করা হয়। মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করে স্কুলের আঙিনায় ঢুকতে দেওয়া হয় শিক্ষার্থীদের।

ভাউমান গ্রামের বাসিন্দা ও শিশুর অভিভাবক আজহারুল ইসলাম বলেন, স্কুল বন্ধ রাখতে বলা হয়েছিল। কিন্তু ছেলেমেয়েরা স্কুলে যেতে চায়। তাই শিক্ষকদের সহযোগিতা নিয়ে গত শনিবার এক দিনের মধ্যেই স্কুলের সামনে বাঁশের সাঁকো তৈরি করা হয়।

টালাবহ গ্রামের বাসিন্দা আবদুল বাছেদ মিয়া বলেন, ‘আমাগো পোলাপাইন স্কুলে যাওয়ার জন্য পাগল হয়ে আছে। এত দিন পর স্কুল খুলছে, অথচ বন্যার পানির কারণে স্কুলে যেতে পারবে না, এইটা কি হইতে পারে। তাই সবার উদ্যোগে সাঁকো বানানো হয়।’

 

স্কুলে যেতে সাঁকো তৈরি, শিশুদের মুখে হাসি
                                  

সারা দেশের মতো গাজীপুরেও স্কুল ও কলেজ খুলেছে। শিশুদের উপস্থিতিতে মুখর হয়ে ওঠে বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ।

বন্যার পানির কারণে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে ১৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলেনি। তবে উপজেলার ভাউমান টালাবহ মডেল হাইস্কুলের অভিভাবক ও শিক্ষকেরা মিলে তৈরি করেছেন বাঁশের সাঁকো। সেই সাঁকো দিয়ে বিদ্যালয়ে গিয়ে ক্লাস করেছে শিক্ষার্থীরা।

টালাবহ গ্রামের শিক্ষার্থী মিম আক্তার বলে, ‘স্কুলের মাঠে পানি জমে থাকলেও স্যার ও অভিভাবকেরা স্কুলে যাওয়ার জন্য বাঁশের সাঁকো তৈরি করে দিয়েছেন। কষ্ট হলেও দীর্ঘদিন পর স্কুল খুলেছে। তাই চলে এসেছি।’

ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান বলে, ‘বহুদিন পর স্কুলে এসে খুবই ভালো লাগছে। বন্ধু ও স্যারদের সঙ্গে দেখা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা ক্লাস করেছি।’

সারা দেশের মতো গাজীপুরেও স্কুল ও কলেজ খুলেছে। গতকাল রোববার সকালেই পরিপাটি স্কুল পোশাক পরা শিশুদের উপস্থিতিতে মুখর হয়ে ওঠে বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ। স্কুলের ফটকে শিক্ষকেরা অভ্যর্থনা জানান শিক্ষার্থীদের। স্কুলটি সাজানো হয় বাহারি সাজে।

শিক্ষক ও প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীরা থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে শিশুদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেন। জীবাণুনাশক দিয়ে হাত পরিষ্কার করা হয়। মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করে স্কুলের আঙিনায় ঢুকতে দেওয়া হয় শিক্ষার্থীদের।

ভাউমান গ্রামের বাসিন্দা ও শিশুর অভিভাবক আজহারুল ইসলাম বলেন, স্কুল বন্ধ রাখতে বলা হয়েছিল। কিন্তু ছেলেমেয়েরা স্কুলে যেতে চায়। তাই শিক্ষকদের সহযোগিতা নিয়ে গত শনিবার এক দিনের মধ্যেই স্কুলের সামনে বাঁশের সাঁকো তৈরি করা হয়।

টালাবহ গ্রামের বাসিন্দা আবদুল বাছেদ মিয়া বলেন, ‘আমাগো পোলাপাইন স্কুলে যাওয়ার জন্য পাগল হয়ে আছে। এত দিন পর স্কুল খুলছে, অথচ বন্যার পানির কারণে স্কুলে যেতে পারবে না, এইটা কি হইতে পারে। তাই সবার উদ্যোগে সাঁকো বানানো হয়।’

 

খুলছে স্কুল-কলেজ, আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে যেসব
                                  

অবশেষে শ্রেণিকক্ষে ফিরছে শিক্ষার্থীরা। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয় দ্রুত খোলার সিদ্ধান্ত নিতে চলতি সপ্তাহে উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি।

রোববার (০৫ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে।


যদিও এর আগে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর জানিয়েছিল, বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হলেও প্রথমেই প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে আনা হবে না।

বৈঠক শেষে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, ২০২১ ও ২০২২ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা প্রত্যেক দিন বিদ্যালয়ে যাবে। এছাড়া অন্যান্য ক্লাস সপ্তাহে একদিন চলবে। মাধ্যমিকের ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সপ্তাহে একদিন ক্লাস হবে। তবে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিনই বিদ্যালয়ে যাবে। প্রথম থেকে চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা সপ্তাহে একদিন বিদ্যালয়ে যাবে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শুরুর দিন (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে চার-পাঁচ ঘণ্টা ক্লাস হবে। পর্যায়ক্রমে ক্লাসের সংখ্যা বাড়বে। স্কুলে প্রবেশের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের সারিবদ্ধভাবে প্রবেশ করাতে হবে। ফিজিক্যাল অ্যাক্টিভিটি বা খেলাধুলা চলবে, তবে স্কুলে আপাতত কোনও অ্যাসেম্বলি হবে না।

দীপু মনি বলেন, মাস্ক ছাড়া কেউ শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করতে পারবে না। শিক্ষার্থী, শিক্ষকসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িতদের মাস্ক পরতে হবে। একেবারে কম বয়সী যারা, তাদের কোনও সংকট হচ্ছে কিনা, সেটা শিক্ষকদের খেয়াল রাখতে হবে।

মাস্ক ছাড়া বিদ্যালয়ে নয়

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, ‘আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল-কলেজ খোলার পর মাস্ক ছাড়া কেউ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করতে পারবে না। আর সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে স্কুল-কলেজে প্রাত্যহিক সমাবেশ বা অ্যাসেম্বলি আপাতত করা হবে না।’ তিনি বলেন, সকাল বেলা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যে সমাবেশ হয়, সেই সমাবেশটি আপাতত হবে না, যতক্ষণ না স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে না পারি। কিন্তু শরীরচর্চা বা খেলাধুলা স্বল্প পরিসরে কম সংখ্যক শিক্ষার্থী নিয়ে শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে চালু রাখা হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যখন শিক্ষার্থীরা আসবে, যত ধরনের গাইডলাইন, স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর যা যা আমরা হালনাগাদ করেছি, সেগুলোর ভিত্তিতে শিক্ষক, ব্যবস্থাপনার সঙ্গে যারা জড়িত, তারা সবাই তা নিশ্চিত করবেন। প্রতিদিন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর তাপমাত্রা মাপা এবং তাদের অন্যান্য উপসর্গ আছে কিনা সেটি চেক করাতে হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ক্লাসরুমের মধ্যে যে বিষয়গুলো মানা দরকার— সকলের মাস্ক আছে কিনা? মাস্ক পরিধান করা ছাড়া কেউ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঢুকবে না। অভিভাবকদের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে, তারা তাদের সন্তানদের মাস্কটি দিয়ে দেবেন। যেন শিক্ষার্থীরা মাস্কটি বাসা থেকেই পরে স্কুলে আসে। শিক্ষার্থীরা বাসায় ফিরে যাওয়া পর্যন্ত যেন মাস্ক পরে থাকে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অবশ্যই সকলের মাস্ক পরতে হবে। এর কোনও বিকল্প নেই। খুব ছোট বা কম বয়সী শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে শিক্ষকরা খেয়াল রাখবেন, যাতে কারও অসুবিধা হয় কিনা। কোনও শিক্ষার্থীর মাস্কের কারণে অসুবিধা হয় কিনা, সেই বিষয়গুলো শিক্ষকরা অবশ্যই দেখবেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ভেতরে আসা-যাওয়ার জন্য সবাই যেন সারিবদ্ধভাবে ঢুকে তা নিশ্চিত করা হবে। হাত ধোয়া বা স্যানিটাইজ করার জন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ব্যবস্থা করা আছে। শিক্ষক-অভিভাবকদের নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হবে। কারও উপসর্গ থাকলে না আসাও নিশ্চিত করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় খুলতে বৈঠক

অক্টোবরের আগে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চলতি সপ্তাহে ভিসিদের সঙ্গে ফের বৈঠকে বসবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ভিসিদের সঙ্গে কথা হয়েছিল যে, অন্তত পক্ষে সকল শিক্ষার্থী এক ডোজ টিকা নেওয়ার পরে দুই সপ্তাহ সময় দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা। সেটির আলোকে মধ্য অক্টোবর ঠিক করা হয়েছিল। এখন যে পরিস্থিতি তাতে আমি আবারও এই সপ্তাহে উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠক করবো— সেখানে অবস্থা আবারও পর্যবেক্ষণ করে যদি তারা সিদ্ধান্ত নেন যে, অক্টোবরের আগেই বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত আছেন।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সিদ্ধান্ত তাদের সিন্ডিকেট এবং অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্তে হয়ে থাকে, তাই এই সিদ্ধান্ত তারাই নেবেন। কিন্তু আমরা তাদের সঙ্গে আবারও একটি বৈঠক করবো।’

শিক্ষার্থীদের টিকা

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের সঙ্গে আমরা একটি সভা করেছিলাম গত মাসের শেষে। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়েছিল; বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ আবাসিক শিক্ষার্থীকে টিকা দিয়ে দিতে পেরেছি। যারা অনাবাসিক তাদেরও টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। যাদের এনআইডি আছে তাদের সমস্যা নেই। যাদের এনআইডি নেই তাদেরকেও টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও সাত কলেজের অধিকাংশ শিক্ষার্থী টিকা না পাওয়ার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের টিকা দেওয়া যখন শুরু হয়েছে, তার মধ্যে যাদের এনআইডি আছে, তাদের রেজিস্ট্রেশন করতে বলা হয়েছে। তারা পাবলিক, প্রাইভেট, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নাকি সাত কলেজের সেটি দেখা হয়নি। কাজেই যে কোনও শিক্ষার্থীর বয়স যদি ১৮ বছরের ওপরে হয়, তার এনআইডি থাকলে এখনই তিনি রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন। এখনই তারা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা নিতে পারবেন। যার এনআইডি নেই তার জন্যও বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে হবে

শিক্ষার্থীদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদ্বুদ্ধ করা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচ্ছন্ন করারসহ মোট ১৯ দফা নির্দেশনা অনুসরণ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রস্তুত করতে বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।  অপরদিকে আগামী ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে সব স্কুল-কলেজকে নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। দফায় দফায় বাড়িয়ে সম্প্রতি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়,  ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।
এসএসসি-এইচএসসি নিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে যা লেখা আছে
                                  

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে আটকে যাওয়া চলতি বছরের এসএসসি-এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার সম্ভাব্য একটি সময়সূচি ঘোষণা করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আগামী নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীর ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনের পর এক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে ঢাকার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড।

এতে বলা হয়, বর্তমান অতিমারি পরিস্থিতি বিবেচনায় শিক্ষার্থীদের গ্রুপভিত্তিক ৩টি নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে শিখন ফল অর্জনের বিষয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের আবশ্যিক ও চতুর্থ বিষয়ের কোনো অ্যাসাইনমেন্ট প্রদান করা হবে না।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আবশ্যিক বিষয়সমূহের নম্বর জেএসসি বা জেডিসি বা এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে এসএসসি বা এইচএসসি বা সমমান পর্যায়ে নম্বর প্রদান করা হবে। এ ছাড়া উচ্চতর শিক্ষার ক্ষেত্রে গ্রুপভিত্তিক বিষয়সমূহের মূল্যায়নের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। সে কারণে গ্রুপভিত্তিক বিষয়সমূহের মূল্যায়ন জরুরি।
এতে আরও জানানো হয়েছে, এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষার্থীদের আগামী রোববার (১৮ জুলাই) থেকে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া শুরু হবে। ১২ সপ্তাহে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। ৩টি নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর প্রতি সপ্তাহে ২টি করে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার্থীদের আগামী ২৬ জুলাই থেকে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া শুরু হবে। ১৫ সপ্তাহে মোট ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। ৩টি নৈর্বাচনিক বিষয়ে (৬টি পত্রে) প্রতিটি পত্রে ৫টি করে মোট ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কোভিড-১৯ পরিস্থিতির সার্বিক বিবেচনায় পরীক্ষা গ্রহণ করা সম্ভব না হলে সেক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীর পূর্ববর্তী জেএসসি বা জেডিসি বা এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে সাবজেক্ট ম্যাপিং করে এবং অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে অথবা শুধু সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে এসএসসি বা এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে।
 
বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, আসন্ন ঈদুল আজহার পর এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার ফরম পূরণ অনলাইনে শুরু হবে।
এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ৬০ দিন ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ৮৪ দিন ক্লাস করিয়ে পরীক্ষা নেওয়ার সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড। তবে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় পরীক্ষা আয়োজন করা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়। এ অবস্থায় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিকল্প মূল্যায়নের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন নিতে লাগ
                                  

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে করোনা ভ্যাকসিনের আওতায় আনার লক্ষ্যে ইউনিক পরিচিতি নম্বর তৈরির নির্দেশনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। শিগগিরই এ বিষয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নির্দেশনা প্রদান করা হবে।

সম্প্রতি ইউজিসির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য প্রফেসর ড. বিশ্বজিৎ চন্দের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় জাতীয় পরিচয়পত্র নেই—এমন শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন কার্যক্রমের আওতায় আনার জন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অনতিবিলম্বে ইউনিক পরিচিতি নম্বর তৈরিতে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে নির্দেশনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত এসেছে।
উল্লেখ্য, জাতীয় পরিচয়পত্র আছে এমন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ডাটাবেজ সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে।
বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন ছাত্র ভর্তিসহ সব কার্যক্রম এখন থেকে উল্লিখিত ইউনিক পরিচিতি নম্বরের ভিত্তিতে কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত হয়।
বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সমূহকে কমিশন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ইউনিক পরিচিতি নম্বর তৈরি করে শিক্ষার্থীদের ডাটাবেজ কমিশনে প্রেরণ করতে হবে। কমিশন শিক্ষার্থীদের ইউনিক পরিচিতি নম্বরের ডাটাবেজ পাওয়ার পর ভ্যাকসিন প্রদানের জন্য পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।  
 
এ বিষয়ে ইউজিসি সদস্য ড. বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ গুণগত উচ্চশিক্ষা প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনের আওতায় আনার জন্য একটি ডাটাবেজ তৈরি করা প্রয়োজন। এসব শিক্ষার্থীকে জরুরিভিত্তিতে কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন প্রদান করা না হলে দ্রুততম সময়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।
বিশ্বজিৎ চন্দ আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের ইউনিক পরিচিত নম্বর শুধু কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন কার্যক্রমের জন্য নয়, বরং এটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় সুদূরপ্রসারী ভূমিকা রাখবে। এই ইউনিক পরিচিতি নম্বর বর্তমান ও ভবিষ্যতের সকল শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন নম্বর হিসেবেও কাজ করবে। 
এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা: কেমন হবে প্রশ্ন, নম্বর ও সময়
                                  

কোভিড পরিস্থিতিতে আটকে যাওয়া চলতি বছরের এসএসসি-এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার সম্ভাব্য একটি সময়সূচি ঘোষণা করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আগামী নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে এ কথা জানান তিনি। এ সময় এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার সিদ্ধান্তের বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডা. দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, সীমিত আকারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গ্রুপভিত্তিক তিনটি বিষয়ের ওপর শুধু নৈর্বাচনিক পরীক্ষার মাধ্যমে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। পূর্ববর্তী ক্লাসে আবশ্যিক যে বিষয়গুলোর পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে, সেগুলোর পরীক্ষা না নিয়ে আগের পরীক্ষার ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে।
তবে পরীক্ষার প্রশ্ন, নম্বর ও সময় কেমন হবে? এ প্রশ্নেরও উত্তর দেন শিক্ষামন্ত্রী। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তিন ঘণ্টার পরীক্ষা হবে দেড় ঘণ্টায়। আর প্রশ্নপত্র এখন যেভাবে বহুনির্বাচনী ও রচনামূলক হয়, সেভাবেই হবে। তবে এ ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন বাছাই করার ক্ষেত্রে বেশি সুযোগ পাবে। যেমন আগে যেখানে ১০টি প্রশ্নের মধ্যে থেকে ৮টির উত্তর দিতে হত, সেখানে এখন হয়তো সেই ১০টি প্রশ্নই থাকবে। তবে তার মধ্যে তিনটি বা চারটির উত্তর দিতে বলা হতে পারে। অর্থাৎ শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন বেছে নেওয়ার সুযোগ বেড়ে যাবে।
ডা. দীপু মনি জানান, প্রতি বিষয়ে মোট নম্বর ১০০–এর বদলে ৫০ নম্বর করা হবে। পরে এই ৫০ নম্বরকে ১০০–তে রূপান্তর করে পরীক্ষার ফল দেওয়া হবে।
এ সময় তিনি আরও জানান, এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষার্থীদের আগামী রোববার (১৮ জুলাই) থেকে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া শুরু হবে। ১২ সপ্তাহে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। ৩টি নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর প্রতি সপ্তাহে ২টি করে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার্থীদের আগামী ২৬ জুলাই থেকে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া শুরু হবে। ১৫ সপ্তাহে মোট ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। ৩টি নৈর্বাচনিক বিষয়ে (৬টি পত্রে) প্রতিটি পত্রে ৫টি করে মোট ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে।
 
ডা. দীপু মনি আরও বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতির সার্বিক বিবেচনায় পরীক্ষা গ্রহণ করা সম্ভব না হলে সেক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীর পূর্ববর্তী জেএসসি বা জেডিসি বা এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে সাবজেক্ট ম্যাপিং করে এবং অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে অথবা শুধু সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে এসএসসি বা এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে।
এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ৬০ দিন ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ৮৪ দিন ক্লাস করিয়ে পরীক্ষা নেওয়ার সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড। তবে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় পরীক্ষা আয়োজন করা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়। এ অবস্থায় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিকল্প মূল্যায়নের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
৫৪ হাজার বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ
                                  

৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। দেশের বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদরাসার শূন্য পদের বিপরীতে নিয়োগ পাবেন এসব শিক্ষক।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) রাতে এনটিআরসিএ’র ওয়েবসাইটে এ ফল প্রকাশ করা হয়। বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের সদস্য (শিক্ষাতত্ত্ব ও শিক্ষামান) এ বি এম শওকত ইকবাল শাহীন (যুগ্মসচিব) স্বাক্ষরিত গণবিজ্ঞপ্তিতে এখব জানানো হয়েছে।

দীর্ঘদিনের মামলার জটিলতার পর এটিআরসিএ তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তির ফল প্রকাশ করল।
এনটিআরসিএ সচিব ড. এ টি এম মাহবুব উল করিম গণমাধ্যমকে বলেন, ৫৪ হাজার শিক্ষক নিবন্ধনের ফল প্রকাশ করা হয়েছে। পরবর্তীতে তাদের এসএমএসও দেওয়া হবে।
ওয়েবসাইটে ফল প্রকাশের আগে একই দিন বিকেলে শিক্ষামন্ত্রীর হাতে ফলের অনুলিপি তুলে দেওয়া হয়। এরপর পাস করা প্রার্থীরা এসএমএস এর মাধ্যমে ফল জানানো হবে। এছাড়া নিয়োগ প্রার্থীরা http://ngi.teletalk.com.bd/ntrca/app/  ঠিকানায় গিয়ে ফল জানতে পারবেন।
উল্লেখ্য, বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী প্রার্থীরা পরীক্ষার ফলের জন্য দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছিলেন। করোনা সংকটের এমন দুঃসময়ে ওই বিজ্ঞপ্তির ফল প্রকাশে প্রায় অর্ধলাখ বেকারের মুখে হাসি ফুটল। 
 
এতে শিক্ষামন্ত্রী ও সংশ্লিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তি ফোরামের সভাপতি শান্ত আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল্লাহ রাজু।  
জানা গেছে, ২০১৭ সালের ১৪ ডিসেম্বর হাইকোর্ট একটি রায় দিয়েছিলেন। ওই রায়ে কয়েক দফা নির্দেশনা ছিল। তার মধ্যে একটি ছিল সম্মিলিত মেধা তালিকা অনুযায়ী রিট আবেদনকারী এবং অন্যান্য আবেদনকারীদের নামে সনদ জারি করা। 
কিন্তু দুই বছরেও রায় বাস্তবায়ন না করায় রিট আবেদনকারীরা আদালত অবমাননার আবেদন করেন। সে আবেদনের শুনানি করে ২০১৯ সালে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।
এ রুল বিবেচনাধীন থাকা অবস্থায় ৫৪ হাজার পদের জন্য গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে এনটিআরসিএ। এরপর নিয়োগ বিরত রাখতে একটি আবেদন করেন রিটকারীরা।
এসএসসি-এইচএসসি-জেএসসি পরীক্ষা কীভাবে হবে বলেন শিক্ষামন্ত্রী
                                  

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি আগামী বছরের এসএসসি, এইচএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা কিভাবে হবে সে বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছেন। মন্ত্রী জানিয়েছেন, এ বছর সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে ৬০ দিন ক্লাস করিয়ে এসএসসি এবং ৮৪ দিন ক্লাস করিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আগামী বছরের (২০২২) এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষাও হবে সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে।এ জন্য এসএসসি পরীক্ষার জন্য ১৫০ দিন এবং এইচএসসি পরীক্ষার জন্য ১৮০ দিন ক্লাস করানোর জন্য সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি করা হয়েছে। এ ছাড়া এসব শিক্ষার্থীর জন্য আগামী জুন থেকে সপ্তাহে দুটি করে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। এছাড়া চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ ক্লাস শুরুর পরে জানিয়ে দেয়া হবে।জেএসসি পরীক্ষার বিষয়ে কোনো পরিকল্পনা হয়নি জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জেএসসির ব্যাপারে আমরা ভাবছি অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে যদি এটা করা সম্ভব হয়, সেটি আমরা দেখব। পরীক্ষা নেবার মতো পরিস্থিতি থাকলে সেদিকে আমরা যাব। তা না হলে অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করব।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীদের টিকাদান নিশ্চিত করার পরিকল্পনা থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খোলার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, আবাসিক হলগুলোতে অনেক ভিড় আছে, আমরা সেটি দেখছি। টিকা দেয়ার ব্যাপারে আমরা তথ্যগুলো চেয়েছি ইউজিসির মাধ্যমে, কতজন টিকা পেয়েছেন। আবাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশই ৪০ বছরের নিচে। তাই আমরা ধরেই নিয়েছি তাদের অধিকাংশেরই টিকা দিতে হবে এবং কাজটি আমরা দ্রুত শুরু করতে পারব। প্রথম ডোজ দিলেই তো হবে না, দ্বিতীয় ডোজও দিতে হবে। তাই বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আমাদের আরেকটু চিন্তা করতে হচ্ছে।করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি এবং খোলার বিষয় নিয়ে আজ বুধবার (২৬ মে) আয়োজিত অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এসব কথা জানান। এ সময় শিক্ষামন্ত্রী আরও জানান, এবার পরীক্ষা ছাড়াই এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় পাস দেওয়ার সুযোগ কম। দেওয়া ঠিকও হবে না।

সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী ২৯ মে পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। এখন তা বাড়িয়ে ১৩ জুন করা হয়েছে। করোনার কারণে গত ১৪ মাস ধরে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। এ কারণে প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত প্রায় চার কোটি শিক্ষার্থী মারাত্মক সমস্যায় পড়েছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলাছে তারিখ
                                  

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকা সাপেক্ষে আগামী ১৩ জুন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা এবং শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৭ মে) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে এ নির্দেশনা জারি করা হয়।মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের নির্দেশনায় বলা হয়, করোনা সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার লক্ষ্যে আগের ধারাবাহিকতায় আগামী ১২ জুন পর্যন্ত সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। এ সময়ে নিজেদের এবং অন্যদের করোনা সংক্রমণ থেকে সুরক্ষার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করবে। বাসায় থেকে তারা টেলিভিশন ও অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকাকালীন শিক্ষার্থীদের বাসায় অবস্থানের বিষয়টি অভিভাবকরা নিশ্চিত করবেন এবং স্থানীয় প্রশাসন তা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে।

এর আগে বুধবার (২৬ মে) ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা মন্ত্রী দীপু মনি জানান, আগামী ১৩ জুন থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া‌ হবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার বিষয়টি নির্ভর করছে শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাইকে করোনার টিকার আওতায় আনার ওপর।

তিনি বলেন, ১২ জুন পর্যন্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকছে, ১৩ জুন থেকে সেগুলো খুলে দেওয়া হচ্ছে।

এর আগে তিনি বলেন, যদি ১৩ জুন স্কুল-কলেজগুলো খুলে দিতে পারি সেক্ষেত্রে ২০২১ সালের এসএসসি-এইচএসসি ব্যাচকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। তারা হয়তো সপ্তাহের ছয়দিন ক্লাসে আসবে। যারা ২০২২ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থী, তাদের ছুটির দিন ছাড়া বাকি দিনগুলোতে ক্লাসে নিয়ে আসা হবে। অন্যদের বিষয়ে সপ্তাহে হয়তো একদিন ক্লাসে আনা হবে।


আবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানো হয়েছে
                                  

নতুন বাজার ডেস্ক 

মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আগামী ২৯ মে পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।শনিবার (১৫ মে) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে অতি সম্প্রতি চলমান কোভিড-১৯ অতিমারিতে সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি পরিলক্ষিত হওয়ায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও সার্বিক নিরাপত্তা বিবেচনায় এবং কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে পরামর্শক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ সময়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

এর আগে গত ২৫ মার্চ করোনাভাইরাস সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির বৈঠক শেষে ২৩ মে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে আগামী ২৩ মে স্কুল–কলেজ এবং ২৪ মে বিশ্ববিদ্যালয় খোলা সম্ভব হবে না বলে শনিবার (১৫ মে) গণমাধ্যমকে জানান শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, যেহেতু চলমান বিধিনিষেধ আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে, তাই ২৩ মে স্কুল–কলেজ এবং ২৪ মে বিশ্ববিদ্যালয়ে খোলা সম্ভব হবে না।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক ধাপে বাড়ানোর পর ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হয়। গত ২২ জানুয়ারি করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে গাইডলাইন প্রকাশ করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর। এ গাইডলাইন অনুসরণ করে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। স্কুল-কলেজগুলোতে ৩৯ পাতার গাইডলাইন পাঠিয়ে বলা হয়, ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে স্কুলগুলো প্রস্তুত করে রাখতে, যাতে যে কোনো মুহূর্তে সেগুলো খুলে দেয়া যেতে পারে।

হাইস্কুলে বিনামূল্যে দেয়া হবে কনডম
                                  

শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে কনডম বিতরণ করা হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি নামকরা হাইস্কুল কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটসের লিন স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের নিয়ে বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে বসে। ২ ঘণ্টা ধরে আলোচনার পর সিদ্ধান্ত হয় স্কুলের শিক্ষার্থীদেরকে জন্মনিরোধক বিভিন্ন কৌশল সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে এবং জন্মনিরোধক বিভিন্ন পন্থা অবলম্বনের জন্য কনডমসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সরবরাহ করা হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে স্কুল শিক্ষার্থীদের কম বয়সে গর্ভবতী হওয়া ঠেকাতে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

ম্যাসাচুসেটসের স্থানীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, লিন স্কুলটি হচ্ছে রাজ্যের চতুর্থ বৃহৎ স্কুল। চলতি বছর শুধু এই স্কুলের ৫৭ জন কিশোরী শিক্ষার্থী গর্ভবতী হয়েছে। একই স্কুলের ২১ জন শিক্ষার্থী শুধু গত সেপ্টেম্বর মাসে স্থানীয় হাসপাতালে যৌন বিষয়ক বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিয়েছেন।

এমন পরিস্থিতিতে অভিভাবকদের সাথে আলোচনা করেই স্কুল কর্তৃপক্ষ যৌন বিষয়ক শিক্ষা আরও জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেয়। অনুষ্ঠানে একজন কিশোরী শিক্ষার্থী মা বক্তব্য রাখে।

ডেসটিনি ডেভিস নামের ওই শিক্ষার্থী জানান কিভাবে অসাবধানতার কারণে তাকে ১৫ বছর বয়সে মা হয়ে যেতে হয়েছে। এবং এর কারণে তার জীবন কিভাবে বদলে গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিন, নয়তো বিষ দিন’
                                  

মার্চের প্রথম সপ্তাহে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় খুলে একাডেমিক কার্যক্রম শুরু করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এতে আক্ষেপ করে এক শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের জীবন থমকে গেছে। প্রতিনিয়ত হতাশায় নিমজ্জিত হচ্ছি। বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিন, নয়তো বিষ দিন, এভাবে আর কত দিন চলবে!রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, দেশের যেখানে সবকিছু স্বাভাবিক, তখন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রেখে তামাশা শুরু করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা পড়াশোনা করেন তারা সবাই দেশের প্রথম সারির নাগরিক। তারা নিজেদের সুরক্ষার ব্যাপারে সচেতন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাই।

তারা আরও বলেন, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল থাকলেও জবি শিক্ষার্থীদের মেস-বাসা ভাড়া করে থাকতে হয়। শিক্ষামন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয় খুললে হলের শিক্ষার্থীদের টিকা দেবেন কিন্তু জবি শিক্ষার্থীদের হল নেই, তাহলে আমরা কি টিকা পাব না!

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার নতুন সিদ্ধান্ত শিক্ষামন্ত্রী
                                  

আগামী ৩০ মার্চ দেশের সব স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আসন্ন রমজান মাসে ক্লাস বন্ধ রাখার কোনো পরিকল্পনা নেই বলেও জানান তিনি। এছাড়া পূর্বঘোষিত জুন মাসে হচ্ছে না এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এদিকে আগস্টে নির্ধারিত এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষাও হচ্ছে না।শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসএসসির ৬০ দিন ও এইচএসসির ৮৪ দিন ক্লাস ধরে পরিমার্জিত সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করেছে শিক্ষাবোর্ড। এ সিলেবাস শেষ করেই পরীক্ষা নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, জুন মাসে পরীক্ষা হবে এটা আগে বলেছিলাম। এখন পরিস্থিতি অন্যরকম। যখনই স্কুল কলেজ খোলা হবে তখন থেকে এসএসসির ক্ষেত্রে ৬০ কর্মদিবস এবং এইচএসসির ক্ষেত্রে ৮৪ কর্মদিবস সরাসরি ক্লাস নেওয়ার পর আরও সপ্তাহ দুয়েক সময় দিয়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে। এক্ষেত্রে এসএসসি পরীক্ষা জুলাইয়ে চলে যেতে পারে।দীপু মনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে শিক্ষক কর্মচারীদের টিকা দেয়ার কাজ শেষ করা হবে। পুরো রোজায় ক্লাস বন্ধ রাখার পরিকল্পনা নেই। শুধু ঈদের সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।  ক্লাস ফাইভে সপ্তাহে ৫ দিন, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে সপ্তাহে ৬ দিন এবং বাকিদের ক্ষেত্রে সপ্তাহে ১ দিন করে ক্লাস হবে। 

এর আগে, গত ২২ ফেব্রুয়ারি অনলাইনে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখ ঘোষণা করেন।  

এদিন তিনি বলেন, দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান ২৪ মে থেকে শুরু হবে এবং হল খুলবে ১৭ মে। এর আগে সব ধরনের পাঠদান ও পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। ১৭ মে এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব আবাসিক শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীদের করোনা টিকা দেওয়া হবে। এছাড়া বিসিএস পরীক্ষার আবেদন ও পরীক্ষার তারিখ বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নির্ধারণ করা হবে। 

গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক ধাপে বাড়ানোর পর ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হয়। গত ২২ জানুয়ারি করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে গাইডলাইন প্রকাশ করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর। এ গাইডলাইন অনুসরণ করে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। স্কুল-কলেজগুলোতে ৩৯ পাতার গাইডলাইন পাঠিয়ে বলা হয়, ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে স্কুলগুলো প্রস্তুত করে রাখতে, যাতে যে কোনো মুহূর্তে সেগুলো খুলে দেয়া যেতে পারে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গোটা বিশ্বকে নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের এই প্রতিকূল স্রোতের মুখোমুখি বাংলাদেশও। অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মতো বাংলাদেশের জন্য আরেকটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে শিক্ষা খাত। প্রায় ১২ মাস ধরে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। কিছু ক্ষেত্রে অনলাইনে কার্যক্রম চলমান।

পরীক্ষার দাবিতে শাহবাগে বিক্ষোভের চেষ্টাকালে আটক ১০
                                  

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে বিক্ষোভের চেষ্টাকালে ১০ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে শিক্ষার্থীরা চলমান পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে শাহাবাগ মোড়ে বিক্ষোভ করতে এলে পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায়। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের রমনা জোনের ডিসি সাজ্জাদুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। বলেন, তারা কে কোথা থেকে এসেছে, কেন এসেছে এগুলো জেনে তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে। 

আটক শিক্ষার্থীরা হলেন, তেজগাঁও কলেজের শিক্ষার্থী কাউসার আহমেদ, হাসান আল মাহদী, শাহ দিদার, সিদ্ধেশ্বরী কলেজের শিক্ষার্থী আল আমিন মিনা, সাগর, খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ সজল মিয়া, হাজী সেলিম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের মিরাজুল ইসলাম। বাকি তিন জনের নামপরিচয় জানা যায়নি।

এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাতটি সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা চলমান পরীক্ষার স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার, হল ও ক্যাম্পাস খুলে দেওয়ার দাবিতে নীলক্ষেত মোড়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করা হয়। আন্দোলনের ফলে চলমান ও ঘোষিত পরীক্ষাসমূহ শর্তসাপেক্ষে নেওয়ার কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি)  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও সাত কলেজের অধ্যক্ষদের এক ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, শর্তসমূহ হল পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে হোস্টেল খোলা হবে না এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

এডিপির অর্থায়নে নবাবগঞ্জে শিক্ষা প্রতিষ্টানে বেঞ্চ বিতরণ করলেন এমপি শিবলী সাদিক
                                  

 

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম এ সাজেদুল ইসলাম(সাগর)
গত বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশ টায় দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে উপজেলা চত্বরে শিক্ষার মান উন্নয়নে উপজেলা এডিপির অর্থায়নে ১২৬ জোড়া বেঞ্চ তৈরী করা হয়েছে। ওই বেঞ্চগুলো বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর-৬ এর এমপি মোঃ শিবলী সাদিক । এ সময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আতাউর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাজমুন নাহার, উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মুনছুর রহমান, ওসি অশোক কুমার চৌহান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছাঃ পারুল বেগম, ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাদত মোঃ সায়েম সবুজ, আ‘লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ জিয়াউর রহমান মানিক, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাফিজুর রহমান, কেন্দ্রীয় ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোঃ সানোয়ার হোসেন মন্ডল, উপজেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাফিজুর রহমান মিলন, আ’লীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক শাহ আলমগীর, নবাবগঞ্জ বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি মোঃ মতিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আতাউর রহমান জানান, উপজেলা বার্ষিক উন্নয়ন তহবিল এডিপির অর্থায়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেঞ্চ দেয়া হয়েছে। প্রথমে উপজেলা সদরে উপজেলা সানরাইজ বিদ্যানিকেতন এর পক্ষ থেকে অধ্যক্ষ আব্দুল হাকিম ও বালিকা দাখিল মাদ্রাসার পক্ষ থেকে শিক্ষক মন্ডলী বেঞ্চ গ্রহণ করেন।

ঝুঁকি কমে আসলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে: শিক্ষামন্ত্রী
                                  

করোনার ঝুঁকি কমে আসলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর একটি হোটেলে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ‘নিরাপদে ইশকুলে ফিরি’ প্রচারাভিযানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেছেন।শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মোট কথা একেবারে গোড়া থেকেই যেটি কথা, স্বাস্থ্যঝুঁকি আমরা নেব না। যেখানে স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকবে, তখন আমরা খুলব না। যখন মনে করব, ঝুঁকিটা খুবই কম এবং এখন খোলা যায় নিরাপদভাবে, আমরা তখন খুলব।

যখনই স্কুল-কলেজ খোলা হোক না কেন, তার কতদিন পরে এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষা নিলে শিক্ষাবর্ষ নষ্ট হবে না সে বিষয়টি মাথায় রেখে সিলেবাস প্রণয়নের কথা জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, আমরা কতগুলো কার্যদিবস পাব, কতগুলো ক্লাস পাব; সেই হিসাব করে আমরা নতুন করে সিলেবাস প্রণয়ন করেছি এসএসসি ও এইচএসসির জন্য। এসএসসির জন্য একটি ৬০ কর্মদিবসের সিলেবাস তৈরি করেছি এবং মাথায় রেখেছি কোন কোন বিষয়গুলো তার ওই সাবজেক্টের জন্য জানা অত্যাবশ্যক। এইচএসসিতে ৮৪ কার্যদিবস আমরা ঠিক করেছি। কাজেই আমাদের খুলতে যদি দেরি হয়, পরীক্ষা একটু পরে নেব, তাতে এমন কোনো অসুবিধা হবে না। এবং এরপরে তাদের পরবর্তী পর্যায়ে যাওয়াটা খুব সমস্যা হবে বলে আমরা মনে করছি না।

উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের অটোপাসের বিষয়ে বিভিন্ন মন্তব্যের বিষয়ে তিনি বলেন, এইচএসসির ফল সাধারণত আগের চেয়ে একটু কম ভালো হয়। কিন্তু এবার আগের দুটো পাবলিক পরীক্ষার ভিত্তিতে হওয়ায় বরাবরের চেয়ে একটু ভালো হয়েছে। তারা যদি একটু বেশি খুশি থাকে, তাহলে তো আমাদের অখুশি হওয়ার কথা না।

এদিকে করোনার সময়ে সবাই মানসিক সমস্যায় পড়েছেন, এই ফলাফল শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য তো ক্ষতিকর না। কিন্তু অনেকেই অটোপাস-অটোপাস বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এর উত্তর দিয়েছেন। আমি আর কিছু বলতে চাই না।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য সুখবর
                                  

দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেডে বেতন দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে শিক্ষকদের শিক্ষাগত যোগ্যতাও শিথিল করা হয়েছে।বুধবার (৩ ফ্রেব্রুয়ারি) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে আদেশ জারি করে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-২০১৯ জারির পূর্বে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের মধ্যে যারা এখনও কর্মরত আছেন, তাদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিলপূর্বক বেতন গ্রেড নির্ধারণে অর্থ বিভাগের সম্মতি জ্ঞাপন করা হলো। ফলে এখন থেকে সব শিক্ষক ১৩তম গ্রেডে (১১০০০-২৬৫৯০ টাকা) বেতন পাবেন।

এর আগে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে দেশের সকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১৩তম করার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। একই সঙ্গে প্রশিক্ষণ পাওয়া ও প্রশিক্ষণবিহীন দুই ধরনের প্রধান শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১১তম করার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। এতদিন প্রশিক্ষণ পাওয়া প্রধান শিক্ষকেরা ১১তম গ্রেডে এবং প্রশিক্ষণবিহীন প্রধান শিক্ষকেরা ১২তম গ্রেডে বেতন পাচ্ছিলেন। অন্যদিকে প্রশিক্ষণ পাওয়া সহকারী শিক্ষকরা ১৪তম গ্রেডে ও প্রশিক্ষণবিহীন শিক্ষকেরা ১৫তম গ্রেডে বেতন পাচ্ছিলেন।

এখন আগের নিয়োগবিধি অনুযায়ী যারা সহকারী শিক্ষক হিসেবে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ পেয়েছেন, তাদেরও শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্বিশেষে বেতন গ্রেড-১৩-এর সুবিধা দেয়ার সিদ্ধান্তের আদেশ জারি হয়েছে। এতে দীর্ঘদিন ধরে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিল, সেটি দূর হলো বলে মনে করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষকরা।


   Page 1 of 7
     শিক্ষা
স্কুলে যেতে সাঁকো তৈরি, শিশুদের মুখে হাসি
.............................................................................................
খুলছে স্কুল-কলেজ, আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে যেসব
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসি নিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে যা লেখা আছে
.............................................................................................
বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন নিতে লাগ
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা: কেমন হবে প্রশ্ন, নম্বর ও সময়
.............................................................................................
৫৪ হাজার বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসি-জেএসসি পরীক্ষা কীভাবে হবে বলেন শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলাছে তারিখ
.............................................................................................
আবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানো হয়েছে
.............................................................................................
হাইস্কুলে বিনামূল্যে দেয়া হবে কনডম
.............................................................................................
বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিন, নয়তো বিষ দিন’
.............................................................................................
এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার নতুন সিদ্ধান্ত শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
পরীক্ষার দাবিতে শাহবাগে বিক্ষোভের চেষ্টাকালে আটক ১০
.............................................................................................
এডিপির অর্থায়নে নবাবগঞ্জে শিক্ষা প্রতিষ্টানে বেঞ্চ বিতরণ করলেন এমপি শিবলী সাদিক
.............................................................................................
ঝুঁকি কমে আসলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে: শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য সুখবর
.............................................................................................
ভালুকায় বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রীর পাশে দাঁড়ালেন ইউএনও সালমা খাতুন
.............................................................................................
টাকা ফেরত পাবেন এইচএসসি পাস করা শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
এইচএসসির ফল প্রকাশ পাস শতভাগ
.............................................................................................
ঢাবির সেই ছাত্রীর আরেক মামলা
.............................................................................................
প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার পূর্বপ্রস্তুতিতে ৯ নির্দেশনা
.............................................................................................
ভিপি নুরের বিরুদ্ধে ঢাবি ছাত্রির ধর্ষণ মামলা
.............................................................................................
প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য আসছে সুখবর
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত ২৭ আগস্ট
.............................................................................................
একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির ফল প্রকাশ
.............................................................................................
হচ্ছে না প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা
.............................................................................................
মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বিদ্যা নিকেতনে জাতীয় শোক দিবস পালিত
.............................................................................................
বাতিল হচ্ছে পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা
.............................................................................................
কাল থেকে শুরু একাদশে ভর্তি
.............................................................................................
উন্নয়নের ধারাবাহিতায় ইবির চার বছর
.............................................................................................
স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলছে মাদ্রাসার হিফজ বিভাগ
.............................................................................................
এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ
.............................................................................................
২০ মে এসএসসি`র ফল প্রকাশ
.............................................................................................
টিভিতে প্রাথমিকের ক্লাস শুরু ৫ এপ্রিল
.............................................................................................
শাবিতে অনলাইনে ক্লাস নেবেন শিক্ষকরা
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়লে বিকল্প ব্যবস্থা
.............................................................................................
৯ এপ্রিল পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ
.............................................................................................
করোনা: এইচএসসি`র প্রবেশপত্র বিতরণ স্থগিত
.............................................................................................
প্রাথমিকসহ সকল শিক্ষকদের রোজার ছুটি কমছে!
.............................................................................................
প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে মুজিববর্ষের সব অনুষ্ঠান স্থগিত
.............................................................................................
এইচএসসি পরীক্ষা বন্ধে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি
.............................................................................................
করোনাঃ কাল থেকে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ
.............................................................................................
করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের দাবি জোরদার হচ্ছে
.............................................................................................
একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শুরু ১০ মে
.............................................................................................
করোনা: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত বিকালে
.............................................................................................
প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে নতুন নিয়ম
.............................................................................................
৭৬০ দিন অনুপস্থিত থেকেও তিনি উপাচার্য
.............................................................................................
যশোরে ছাত্রাবাস থেকে বিদেশি শটগান, বোমা উদ্ধার
.............................................................................................
ঢাবির পাঁচ শিক্ষক চাকরিচ্যুত
.............................................................................................
ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এম.এ মান্নান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ খন্দকার আজমল হোসেন বাবু। র্বাতা সম্পাদক আবু ইউসুফ আলী মন্ডল, ফোন ০১৬১৮৮৬৮৬৮২

ঠিকানাঃ বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়- নারায়ণগঞ্জ, সম্পাদকীয় কার্যালয়- জাকের ভিলা, হাজী মিয়াজ উদ্দিন স্কয়ার মামুদপুর, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ। শাখা অফিস : নিজস্ব ভবন, সুলপান্দী, পোঃ বালিয়াপাড়া, আড়াইহাজার, নারায়ণগঞ্জ-১৪৬০, রেজিস্ট্রেশন নং 134 / নিবন্ধন নং 69 মোবাইল : 01731190131, 01930226862, E-mail : mannannews0@gmail.com, web: notunbazar71.com, facebook- notunbazar / সম্পাদক dhaka club
    2015 @ All Right Reserved By notunbazar71.com

Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop