| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   শেয়ার করুন
Share Button
   কৃষি
  খাগড়াছড়িতে কফি চাষ: সফল কৃষকরা
  17, March, 2021, 12:42:51:AM
সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সারা বিশ্বের সবার কাছেই পানীয় হিসেবে বেশ জনপ্রিয় কফি। এই কফি সাধারণত পশ্চিমা দেশের অন্যতম পানীয়। বাংলাদেশেও এর বিস্তার শুরু হয়েছে। খাগড়াছড়িতে পাহাড়ি কৃষি গবেষণায় পরীক্ষামূলক কফি চাষ শুরুর পর নতুন করে জেলার ১০টি বাগানে ১০ হাজার চারা লাগিয়ে বাণিজ্যিকভাবে সফলতা পাচ্ছেন পাহাড়ের কৃষকরা।
 
 
ইতিমধ্যে বাংলাদেশ কফি চাষের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দ্রæতগতিতে। ধান, পাট ও অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি কফিও এদেশকে এনে দিতে পারে রফতানি খাতে আর্থিক সাফল্য ও বৈদেশিক মুদ্রা।
 
 
কৃষি গবেষণা সূত্রে জানা গেছে, ২০০১ সালের দিকে খাগড়াছড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে পরীক্ষামূলকভাবে কফি চাষ শুরু হয়, যা ইতিমধ্যে সাফল্যের মুখ দেখতে শুরু করেছে। কফি চাষ সম্প্রসারণে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।
 
 
কৃষিবিদদের মতে, কফি গাছ দেখতে অনেকটা বেলি ফুল গাছের মতো। তবে তার উচ্চতা কম হলেও ঘেরের দিক থেকে অনেকটা বড়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৬০০ ফুট ওপরে যে কোনো মাটিতে কফি চাষ করা সম্ভব। তবে পাহাড়ি উপত্যকা ও ঝরনার পাশের জমি এবং যেসব জমিতে লবণাক্ততা নেই, সেসব জমি কফি চাষের উপযোগী।
 
 
চারা রোপণের ৪ থেকে ৫ বছরের মধ্যে কফির ফল-গোটা সংগ্রহ করা যাবে। কফির গোটাগুলো দেখতে অনেকটা গমের মতো। তবে তা আকারে একটু বড়। একটি গাছ থেকে ২০ থেকে ৩০ বছর ধরে ফল পাওয়া যায়। প্রতিটি গাছের জন্য খরচ হয় মাত্র এক থেকে দেড়’শ টাকা। একটি গাছ থেকে বছরে আধা কেজির বেশি কফির শুকনো ফল সংগ্রহ করা যায়।
 
 
কফিগাছ থেকে শুধু পানীয়ই নয়। অন্যান্য উপকরণ ব্যবহার করে মধু ও শ্যাম্পু তৈরি করা যাবে। একটি কফি গাছের ফুল থেকে প্রতিবারে ১০০ গ্রাম মধু সংগ্রহ করা সম্ভব। পাশাপাশি ওই গাছের উপকরণকে প্রক্রিয়া করে উন্নত মানের ‘শ্যাম্পু’ তৈরি করা যাবে।
 
 
খাগড়াছড়ি পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের কফি প্রক্রিয়াজাতকারী মো. জামাল হোসেন জানান, কফি-বাগান করতে খুব বেশি টাকার প্রয়োজন হয় না। গাছ থেকে কফি সংগ্রহ করে খুব কম সময়ে কফির বিনগুলো শুকিয়ে গুঁড়া করে তাৎক্ষণিক কফি তৈরি হয়ে যায়। ‘অ্যারাবিয়ান’ জাতের এ কফি বাজারের প্যাকেটজাত সাধারণ কফির চেয়ে বহুগুণ সুস্বাদু। বাজারজাত করলে এটি অনেক লাভজনক হবে বলেও জানান তিনি।
 
 
খাগড়াছড়ি পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মুন্সী আব্দুর রশিদ বলেন, ২০০১ সাল থেকে পরীক্ষামূলক ভাবে এখানে আমরা কফি চাষ শুরু করি। বর্তমানে জেলার ১০টি বাগানে নতুন করে ১০ হাজার চারা লাগানো হয়েছে। কফি চাষের জন্য পাহাড়ি অঞ্চল খুবই উপযোগী। কম খরচ ও পরিশ্রমে একটি বাগান থেকে দীর্ঘদিন ধরে কফি উৎপাদন সম্ভব। বর্তমানে খাগড়াছড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের দুই একর পাহাড়ি টিলাভূমিতে ৪৫০টি গাছে কফি ধরেছে, যা ইতোমধ্যে সাফল্যের মুখ দেখতে শুরু করেছে।
 
 
পার্বত্য চট্টগ্রাম কফি চাষের জন্য খুবই উপযোগী জানিয়ে খাগড়াছড়ি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. মর্তুজ আলী জানান, কম সময়ে কফি চাষে ফলন পাওয়া যায় বলে সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। স্থানীয় কৃষকদের মাঝে সঠিকভাবে ছড়িয়ে দেওয়া গেলে কফি চাষে সচ্ছলতা ফিরে আসবে পাহাড়ি জীবনে।
 
 
আগামী দুই-তিন বছরের মধ্যে খাগড়াছড়িতে কফি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প গড়ে উঠবে, এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে সংশ্লিষ্ট গবেষক ও কর্মকর্তারা মনে করছেন, ভবিষ্যতে কৃষি পর্যায়ে কফি চাষের বাণিজ্যিক সম্ভাবনা তুলতে পারলে এটি ভবিষ্যতে দেশের অর্থকরী ফসলে পরিণত হবে।


সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 269        
   আপনার মতামত দিন
     কৃষি
ময়মনসিংহের ভালুকায় লোকসানের শঙ্কায় পেঁপে চাষিরা
.............................................................................................
ভালুকায় ২ যুবকের ড্রাগন চাষে সাফল্য
.............................................................................................
খাগড়াছড়িতে কফি চাষ: সফল কৃষকরা
.............................................................................................
নবাবগঞ্জে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে ধান মাড়াই পাওয়ার থ্রেসার মেশিন বিতরণ
.............................................................................................
করোনাকালীন দুর্যোগেও উৎপাদন থেমে নেই কৃষি দপ্তরে উত্তর জনপদে ধানের পাশাপাশি খাদ্য শষ্য হিসেবে বেড়েছে গমের উৎপাদন
.............................................................................................
ফুলবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরনের উদ্বোধন
.............................................................................................
পাটের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে সরকার সচেষ্ট
.............................................................................................
নওগাঁয় লেবু চাষে বদলে গেছে কৃষকদের ভাগ্যের চাকা!
.............................................................................................
ভবনগর গ্রামে বাড়িতে বাড়িতে ধানের গোলা
.............................................................................................
নবাবগঞ্জে আম লিচুর উৎপাদন কম হওয়ার সম্ভাবনা
.............................................................................................
মহাদেবপুরে লক্ষ্যমাত্রার অধিক জমিতে গম চাষ
.............................................................................................
কৃষিতে যোগহল স্কোয়াশ চাষাবাদ
.............................................................................................
মাল্টা চাষে আগ্রহী হচ্ছেন কৃষক
.............................................................................................
বাজারে উঠতে শুরু করেছে নতুন পেঁয়াজ
.............................................................................................
ঝিনাইদহে পানির অভাবে পাট জাগ দিতে পাছেনা
.............................................................................................
খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে ভালো বীজের ভূমিকা অনেক
.............................................................................................
ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে সুইচ গেইট নির্মাণ ॥ ৬৬৩ হেক্টর জমিতে সেচ সুবিধা পাবে এলাকার কৃষকেরা ॥
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ে লিচুর বাগানে মৌ চাষ খাঁটি মধু সংগ্রহ শুরু
.............................................................................................
টেকসই উন্নয়নে কৃষক ও কৃষির উন্নয়নের বিকল্প নেই: রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
কৃষি মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম গতিশীল হবে
.............................................................................................
সাতক্ষীরায় গমের আবাদ বেড়েছে
.............................................................................................
২ লাখ টাকা বেতন, একজনের আবেদন
.............................................................................................
পথে পথে শাক-সবজি সংগ্রহ করে সংসার চালায়
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এম.এ মান্নান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ খন্দকার আজমল হোসেন বাবু। র্বাতা সম্পাদক আবু ইউসুফ আলী মন্ডল, ফোন ০১৬১৮৮৬৮৬৮২

ঠিকানাঃ বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়- নারায়ণগঞ্জ, সম্পাদকীয় কার্যালয়- জাকের ভিলা, হাজী মিয়াজ উদ্দিন স্কয়ার মামুদপুর, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ। শাখা অফিস : নিজস্ব ভবন, সুলপান্দী, পোঃ বালিয়াপাড়া, আড়াইহাজার, নারায়ণগঞ্জ-১৪৬০, রেজিস্ট্রেশন নং 134 / নিবন্ধন নং 69 মোবাইল : 01731190131, 01930226862, E-mail : mannannews0@gmail.com, web: notunbazar71.com, facebook- notunbazar / সম্পাদক dhaka club
    2015 @ All Right Reserved By notunbazar71.com

Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop